অ্যাপলের হাতঘড়িতে সাংবাদিক খাসোগি ‘হত্যার রেকর্ড’

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৫৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৫৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০১৮
গত সপ্তাহে ইস্তাম্বুলে অবস্থিত সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর নিখোঁজ হন সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি। তুর্কি সরকারের সরবরাহকৃত সিসিটিভি ফুটেজে এ দৃশ্য দেখা যায়। ছবি : রয়টার্স

সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগির ব্যবহৃত অ্যাপলের হাতঘড়িতে তাঁকে হত্যা ও নির্যাতনের ঘটনা রেকর্ড হয়ে থাকতে পারে বলে জানিয়েছে তুরস্কের একটি সংবাদপত্র।

তুরস্কের ডেইলি সাবাহ এক প্রতিবেদনে দাবি করেছে, সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে জিজ্ঞাসাবাদ, নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ডের মুহূর্তগুলো তাঁর হাতে থাকা অ্যাপল ঘড়িতে রেকর্ড হয়ে থাকতে পারে। তবে হত্যার পর সৌদি গোয়েন্দারা হাতঘড়িতে রেকর্ডের ঘটনা টের পেয়ে তাঁর আঙুলের ছাপ ও পিন নম্বর ব্যবহার করে তথ্য মুছে ফেলেন। তবে খাসোগির আইক্লাউড অ্যাকাউন্ট থেকে সব ফাইল সরাতে পারেননি সৌদি গোয়েন্দারা।

তবে অ্যাপল কোম্পানির হাতঘড়িটিতে আইফোনের মতো আঙুলের ছাপ ব্যবহার করে পরিচিতি শনাক্তের সুবিধাটি নেই। পত্রিকাটি এ ব্যাপারে কিছু জানায়নি।

পত্রিকাটি বলেছে, সাংবাদিক জামাল খাসোগির আইফোন এবং আইক্লাউড অ্যাকাউন্ট থেকে কিছু কিছু তথ্য পাওয়া গেছে।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা কর্মকর্তারা ওয়াশিংটন পোস্টকে জানান, তাঁরা হত্যাকাণ্ডের অডিও ও ভিডিও ফুটেজ হাতে পেয়েছেন।

গোয়েন্দা সূত্রের ভাষ্যে ওয়াশিংটন পোস্ট জানায়, ‘জামাল কনস্যুলেটে প্রবেশের পর তাঁর সঙ্গে যা হয়েছে, অডিও রেকর্ডে সেসব শোনা যাচ্ছে।‌‌’

‘তাঁর (জামাল খাসোগি) কণ্ঠের পাশাপাশি কয়েকজন লোক আরবিতে কথাবার্তাও শোনা যাচ্ছে, তারা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে, নির্যাতন চালাচ্ছে এবং একপর্যায়ে হত্যা করে।‌‌’

তবে ওই কথোপকথনের অডিও তাঁর হাতঘড়ি থেকে পাওয়া কি না, তা নিশ্চিত নয়। এমন হতে পারে, তুর্কি গোয়েন্দারা সৌদি কনস্যুলেট থেকে অন্য উপায়ে অডিওটি উদ্ধার করে তা অ্যাপল হাতঘড়ির মাধ্যমে পাওয়া গেছে বলে চালিয়ে দিচ্ছেন।

নিরাপত্তা গবেষণা প্রতিষ্ঠান গালফ স্টেট অ্যানালিটিকসের থিওডোর কারাসিক দি ইনডিপেনডেন্টকে বলেন, ‘বিদেশি দূতাবাস বা কনস্যুলেট ভবনে বিভিন্ন ডিভাইসের মাধ্যমে গোয়েন্দাবৃত্তির বিষয়টি গোয়েন্দা প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি চিরাচরিত লক্ষ্যই থাকে।’ তিনি বলেন, ‘এমন কাজ গোয়েন্দারা প্রায়ই করে থাকেন।‌’

সপ্তাহখানেক আগে তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর নিখোঁজ হন সৌদি সরকার এবং বর্তমান যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কড়া সমালোচক হিসেবে পরিচিত ওই সৌদি সাংবাদিক।

তুরস্কের সরকারপন্থী হিসেবে পরিচিত সংবাদপত্র ডেইলি সাবাহ দেশটির গোয়েন্দা সূত্রের বরাতে জানিয়েছে, হাতঘড়িটি তাঁর আইফোনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকার কথা। খাসোগি কনস্যুলেটে প্রবেশের আগে বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা তাঁর বাগদত্তার হাতে তাঁর ব্যবহৃত আইফোনটি দিয়ে যান।

এর আগে কনস্যুলেটে প্রবেশের সময় খাসোগির হাতে অ্যাপলের হাতঘড়ি থাকার বিষয়টি তুর্কি গোয়েন্দাদের বরাতে জানায় রয়টার্স। অ্যাপল কোম্পানির সংযুক্ত ফোন এবং হাতঘড়ির ফলে এই হত্যাকাণ্ডের আরো জরুরি তথ্যপ্রমাণ মিলতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে সাংবাদিক নিখোঁজের ঘটনায় সৌদি-তুর্কি সম্পর্ক তলানিতে ঠেকেছে। তুরস্ক বলছে, ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরেই তাঁকে হত্যা করা হয়েছে। অন্যদিকে সৌদি কর্মকর্তারা বলছেন, খাসোগি কনস্যুলেট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর নিখোঁজ হয়েছেন। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিপরীতমুখী বক্তব্য দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগান ও সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

অন্যদিকে সাংবাদিক হত্যার অভিযোগে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সত্যি হলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সৌদি আরবকে এ ঘটনায় ‌‘কড়া শাস্তি‌’ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকজন ডেমোক্রেটিক সিনেটর সৌদি আরবের সঙ্গে অস্ত্র বিক্রয় চুক্তি বাতিলের দাবি তুললে তা নাকচ করে দেন ট্রাম্প। তিনি এ নিয়ে বলেছেন, অস্ত্র বিক্রয় চুক্তি বাতিল করলে প্রকারান্তরে যুক্তরাষ্ট্রই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় সৌদি আরবে অনুষ্ঠিতব্য একটি সম্মেলনে উপস্থিত না হওয়ার কথাও জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য সরকার।