আক্ষেপ ঘুঁচানোর বড় সুযোগ, কী ভাবছেন মেসি….

প্রকাশিত: ২:৩৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৮ | আপডেট: ২:৩৪:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৮

অনেকের চোখে লিওনেল মেসি ইতিহাসের সেরা ফুটবলার। বল পায়ে বছরের পর বছর ধরে বিস্ময়কর ড্রিবলিং, গতি, নিখুঁত ফিনিশিংয়ের বিষয়গুলো মেসিকে সেরাদের সেরার আসনে বসিয়েছে। বার্সেলোনার হয়ে তার অর্জনও ইতিহাস সেরার মতো। কিন্তু আর্জেন্টিনার হয়ে এই মেসি বড্ড বিবর্ণ! না, ফুটবল পায়ে আর্জেন্টিনার হয়েও নিয়মিত বিস্মিত করে এসেছেন মেসি। কিন্তু অর্জনের দিক দিয়ে বেজায় সাদামাটা।

দেশের হয়ে অনন্ত একটা শিরোপা জেতার জন্য রীতিমতো বুভুক্ষ মেসি। বারবার সেই প্রত্যাশা পূরণের কাছাকাছি পৌঁছেছেনও, কিন্তু শিরোপা ছুঁয়ে দেখা হয়নি। ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছিল মেসির আর্জেন্টিনা। কিন্তু স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল শেষ মুহূর্তের গোলে। শুুুধুই কী তাই! তার আগে এবং পরে দুই কোপা আমেরিকার ফাইনাল খেলেছে আর্জেন্টিনা। কিন্তু ভাগ্যের কি পরিহাস, দুবারই হারতে হয়েছে চিলির বিপক্ষে, তাও টাইব্রেকারে!

আর্জেন্টিনার জার্সিতে শিরোপার সঙ্গে এই ‘ইঁদুর-বিড়াল’ খেলতে খেলতে এরই মধ্যে ৩১ নম্বর জন্মদিনের কেক কেটে ফেলেছেন মেসি। বয়স বৃদ্ধির কারণে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপকে তার ‘অন্ধের যষ্টি’ ভাবা হচ্ছিল। আর্জেন্টিনার হয়ে কিছু জেতার ‘শেষ সুযোগ’ও ভাবছিলেন অনেকে। কিন্তু সেটাও মেসির হাতছাড়া হয়ে গেল। বিশ্বকাপের শেষ ষোলো থেকেই বিদায় নিয়েছে আর্জেন্টিনা।

একের পর এক হতাশা ঘিরে ধরাতে মেসিরও হয়তো ধৈর্য শেষ! বিশ্বকাপের শেষ ষোলো থেকেই বাদ পড়ার পর যথারীতি সমালোচকরা ঘিরে ধরেছিলেন তাকে। আর্জেন্টিনা অধিনায়ক সেটা মেনে নিতে পারেননি বলেই হয়তো ‘সাময়িক অবসরে’ আছেন। বিশ্বকাপের পর ‘আপাতত’ আর্জেন্টিনার হয়ে না খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেসি। অনেকে মনে করছেন, এই সাময়িক অবসরটা ‘স্থায়ী অবসর’ হতে যাচ্ছে না তো! আর্জেন্টিনার হয়ে কিছু জেতার ইচ্ছাকে মাটি চাপা দিয়ে অবসর নিয়ে ফেলবেন মেসি, এমনটাই ধারণা কারো কারো।

আসলেই কী তেমন কিছু হবে? আর্জেন্টিনা জাদুকরের সুযোগ কিন্তু পুরোপুরি শেষ হয়ে যায়নি। বয়স ৩১ চলছে, আগামী বিশ্বকাপে বয়স ৩৫’শের ঘরে যাবে। ওই বয়সে একজন ফুটবলারের পক্ষে সেরা ফর্ম দেখানোটা বিস্ময়করই। তবে অবশ্যই অসম্ভব নয়।

আর্জেন্টিনার হয়ে কিছু জেতার ইচ্ছা মরে না গেলে তার আগেও সুযোগ পাবেন মেসি। আর সেটা আগামী বছরই। আগামী ২০১৯ সালের জুনের প্রথম সপ্তাহে শুরু হবে কোপা আমেরিকা। গত আসরটি যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হলেও আসছে আসরটি অনুষ্ঠিত হবে দক্ষিণ আমেরিকাতে প্রতিবেশী দেশ ব্রাজিলে।

ব্রাজিলে টুর্নামেন্ট হওয়াটা অবশ্যই মেসিদের জন্য বড় সুবিধা। দুই দেশের আবহাওয়া, পরিবেশ অনেকটা একই। তাছাড়া প্রতিবেশী দেশ বলে টুর্নামেন্ট চলাকালে অনেক আর্জেন্টাইনই যাবেন ব্রাজিলে। দর্শক সমর্থনের যে শক্তি সেটাও পাশে থাকবে, গত ব্রাজিল বিশ্বকাপের সময় যেমনটা হয়েছিল। ব্রাজিল কোপা আমেরিকাতে বয়স যে মেসির সামনে বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে না সেটা চিরন্তন সত্য।

সব মিলিয়ে আর্জেন্টিনার হয়ে কিছু জেতার জন্য মেসির যে বুভুক্ষ প্রত্যাশা তা পূরণ হতে পারে ব্রাজিল কোপা আমেরিকাতেই। রাগ, ক্ষোভ, আক্ষেপ একপাশে রেখে মেসি কী নিতে চাইবেন এই সুযোগটা? সময়ই বলে দিবে এই প্রশ্নের উত্তর।