ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে পড়ছেন রোহিঙ্গা তরুণ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:৪৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯ | আপডেট: ১১:৪৪:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯
ছবিঃ সংগৃহিত

বাংলাদেশী বনে যাওয়া এবার আলোচিত রোহিঙ্গা নারী খুশির পর আরেক রোহিঙ্গা যুবকের মুখোশ উন্মোচন হয়েছে।

বাংলাদেশী বনে যাওয়া এই যুবকের নাম হারুনুর রশিদ। পিতার নাম- অজি উল্লাহ। নয়াপাড়া শরণার্থী রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের এইচ (ঐ) ব্লকে তাদের বসবাস। তার বাবা অজি উল্লাহ রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের অভ্যন্তরে অবস্থিত একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন।

হারুনুর রশিদ জন্মসূত্রে তথা বংশগতভাবে একজন রোহিঙ্গা নাগরিক হওয়া সত্ত্বেও টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পি.ই.সি, হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জে.এস.সি এবং এস.এস.সি পাশ করেন। এবার হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি পাশ করে চট্টগ্রামের সরকারি সিটি কলেজ থেকে ২০১৮ সালে এইচ.এস.সি পাশ করেছে।

বর্তমানে সে চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ২য় সেমিস্টারে অধ্যায়নরত আছেন। তবে নিয়মরীতি অনুযায়ে বাংলাদেশী ছন্দবেশে সে চট্টগ্রাম বহদ্দারহাটে একটি মেসেও থাকে। এমনভাবে চলাফেরা করে যাতে রুমমেটরাও সহজে বুঝতে না পারে।

প্রসঙ্গত গত কিছুদিন আগে হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমুরায় যুবলীগ নেতা ওমর ফারুককে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা রাতের আঁধারে নিশৃংসভাবে হত্যা করে। এরপর থেকে টেকনাফের সচেতনমহল ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকে।

এই হারুন উর রশিদ সেইখানে রোহিঙ্গাদের পক্ষ নিয়ে, স্থানীয় সরকারকে দোষারোপ করে বিভিন্ন জনের দেয়া স্ট্যাটাসে কমেন্ট করতে থাকে এবং অনেক জনকে হেয় প্রতিপন্ন করতে থাকে। এক পর্যায়ে রোহিঙ্গাদের পক্ষ নিয়ে কাছের বন্ধুবান্ধবের সাথেও তার কমেন্টে উত্তপ্ত বাক্য-বিনিময় হয়।

ফেইসবুক বন্ধুরা বিভিন্নভাবে তার খোঁজ-খবর নিচ্ছে জেনে সে তার আইডি ডিএক্টিভ করে দেয়। খোঁজ এই রোহিঙ্গা যুবক বাংলাদেশী বনে গিয়ে রোহিঙ্গাদের পক্ষে রীতিমতো সাফাই গেয়ে যাচ্ছেন।