ই-সিগারেট নিষিদ্ধ হলো ভারতে

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ | আপডেট: ৬:০২:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

ভারতে ই-সিগারেট নিষিদ্ধ করেছে দেশটির সরকার। এখন থেকে ই-সিগারেট বা এ জাতীয় কোনো পণ্য উৎপাদন, বেচা-কেনা, পরিবহণ, বিপণন, সংরক্ষণ, আমদানি-রপ্তানি বা যেকোনো ধরনের যোগসূত্র অপরাধ বলে বিবেচিত হবে। আর এ জন্য অভিযুক্তকে জেল-জরিমানাও করা হবে।

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দিয়েছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভি এক অনলাইন প্রতিবেদনে ই-সিগারেট নিষিদ্ধ করার খবর এ জানিয়েছে।

নির্মলা সীতারমণ বলেন, ‘তামাকের আসক্তি মোকাবিলার হাতিয়ার হিসাবে এটিকে ব্যবহার করা হলেও এই ই-সিগারেট বা বৈদ্যুতিক সিগারেট এবং এ ধরনের অন্যান্য পণ্যগুলো দেশে একটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিশুরাও আসক্ত হয়ে পড়ছে। ই-সিগারেট নিষিদ্ধকরণ এখন থেকেই কার্যকর করা হল।’

বুধবার রাজধানী নয়াদিল্লির ওই সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী নির্মলা বলেন, ‘ই-সিগারেট সম্পর্কিত যেকোনো কিছু উৎপাদন, আমদানি-রফতানি, পরিবহন, বিক্রয়, বিতরণ, সঞ্চয় এবং বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আজ থেকে তা কার্যকর হবে।’

এনডিটিভি বলছে, ই-সিগারেট নিষিদ্ধকরণ অধ্যাদেশ-২০১৯ সম্প্রতি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বেশ কিছু সদস্য। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কার্যালয়ের নির্দেশক্রমে তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর ই-সিগারেট নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী এমন ঘোষণা দিলেন

অধ্যাদেশের খসড়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তাব করেছে, নিষিদ্ধ করার বিষয়টি না মানলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ডের পাশাপাশি পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করতে হবে। তবে প্রথমবার ভুলে আইন লঙ্ঘন করলে তাদের কারাদণ্ড না হলেও ১ লাখ রুপি জরিমানার বিধান রাখতে হবে।

নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি জোট সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম একশ দিনের এজেন্ডার মূল অগ্রাধিকারগুলোর মধ্যে ছিল ই-সিগারেট, হিট-নট-বার্ন স্মোকিং ডিভাইস, ভ্যাপ এবং ই-নিকোটিন স্বাদযুক্ত হুকাগুলোর মতো বিকল্প ধূমপানের যন্ত্র নিষিদ্ধ করা।