একাব্বর হোসেনকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় মির্জাপুরবাসী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:২৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০১৯ | আপডেট: ৬:২৩:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০১৯

মোঃ রায়হান সরকার রবিন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি:একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর) আসনে মহাজোট মনোনীত আওয়ামী লীগ প্রার্থী টানা তিন বারের এমপি মো. একাব্বর হোসেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦

মো. একাব্বর হোসেনকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুরবাসী। এলাকার জনগনের দীর্ঘ দিনের লালিত স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করবেন মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এমনটাই প্রত্যাশা করছেন পুরো মির্জাপুরবাসী। মির্জাপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের নের্তৃবৃন্দসহ সচেতন মহল এমনটাই প্রত্যাশার কথা জানিয়েছেন।

টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর আসন এক সময়ে জাতীয় পার্টি ও বিএনপির ঘাঁটি তথা দুর্গ হিসেবে পরিচিত ছিল। দেশ স্বাধীনতার ২৭ বছর এ আসন আওয়ামীলীগের হাতছাড়া ছিল। এই আসনকে উদ্ধার করতে এবং দলকে সু-সংগঠিত ও ঐক্যবদ্ধ করে ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০০১ সালে আওয়ামীলীগ মো. একাব্বর হোসেনকে মনোনয়ন দেন। সেই সময়ে বিএনপি-জামায়াত সরকার গঠন করলেও আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে এমপি হন মো. একাব্বর হোসেন।

এরপর মো. একাব্বর হোসেন আওয়াময়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ২০০৯ ও ২০১৪ সালে বিপুল ভোটের ব্যবধানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি তিন বারের সংসদ সদস্য নির্চাচিত হওয়ায় মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মো. একাব্বর হোসেনকে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব দেন।

বিগত ১০ বছরে তিনি সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালনের সময় সারা দেশে সড়ক, মহাসড়ক ও সেতু বিভাগের সুষম উন্নয়নসহ তার নির্বাচনী এলাকা টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুরকে যোগাযোগ, শিক্ষা, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি ক্ষেত্রেই ঢেলে সাজিয়েছেন। তৈরি করেছেন বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন ব্রীজ, গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, বহুতল ভবনে পরিণত করেছেন অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রয়েছে আরও নানা জনসেবামূলক কর্মকান্ডের নজির।

সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ পুনঃরায় বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. একাব্বর হোসেনকে টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর আসনে মনোনয়ন দেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও গত ৩০ ডিসেম্বর তিনি বিপুল ভোটের ব্যবধানে এমপি নির্বাচিত হন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মির্জাপুরে মোট ভোটার ছিল ৩ লাখ ২২ হাজার ৬৭৩।

মো. একাব্বর হোসেন (নৌকা) ভোট পান ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৯১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি মো. আবুল কালাম আজাদ (ধানের শীষ) ভোট পান ৮৭ হাজার ৯৪৯ ভোট। এখন মির্জাপুর বাসীর প্রাণের দাবী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেনকে একটি মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব দেবেন।

এ ব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ মো. একাব্বর হোসেন এমপি বলেন, আমি রাজনীতি করি দেশ ও জনগনের উন্নয়নের জন্য। এলাকার জনগনের বিপুল ভোটের মাধ্যমে পর পর চার বার নির্বাচিত হয়েছি। এলাকার জনগন আমাকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগের নীতিনির্ধারনী মহল আমার কাজের মুল্যায়ন করে এবং আমাকে যোগ্য মনে করে যদি কোন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব দেন তবে অবশ্যই আমি এলাকার উন্নয়নসহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে দেশ উন্নয়নে ন্যায়, নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবো।