এবার ‘করোনাযুদ্ধে’ লড়বে সুপারকম্পিউটার!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:০৬ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৯:০৯:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০

বিশ্বব্যাপী বিষাক্ত ছোবল বসানো করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই অনেক দেশই প্রাণঘাতী এই ভাইরাস নির্মূলে সুপারকম্পিউটার কাজে লাগাতে শুরু করেছে।

বিজ্ঞানীরা এই সুপারকম্পিউটার কাজে লাগিয়ে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জিং কাজ হাতে নিয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে- গোষ্ঠীর মধ্যে কীভাবে সংক্রমণ ছড়ায় তা বোঝা, কী করে মানবশরীরে ভাইরাস ছড়ায় তা জানা এবং সম্ভাব্য চিকিৎসা ও ভ্যাকসিন আবিষ্কার করা। এর আগে ২০১৫ সালে জিকা মহামারি ও ২০১৪ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত আগ্রাসন চালানো ইবোলার সময়ও সুপার কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়েছে।

এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুপারকম্পিউটার কীভাবে লড়াই করতে পারে?

করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯ সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ায় বহু তথ্য এখন সহজলভ্য এবং গবেষকরা সুপারকম্পিউটার ব্যবহার করে সেগুলো মডেলিং ও বিশ্লেষণ করছেন।

এই সুপার কম্পিউটারের প্রসেসিং ক্ষমতা বেশি হবার ফলে এগুলো সাধারণ কম্পিউটারের চেয়ে অনেক মাস দ্রুত এবং হাতের কাজের থেকে কয়েক বছর আগেভাগে কাজ নিষ্পন্ন করতে পারে।

নোভেল করোনা ভাইরাসের ওষুধ খুঁজে বার করতে সুপারকম্পিউটার কাজে লাগিয়ে বর্তমান ওষুধের কম্পাউন্ডগুলোর ডেটাবেস নিরীক্ষা করা হচ্ছে।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বাইরের দিক কাঁটাজাতীয় এবং সেগুলো কাজে লাগিয়ে ভাইরাস মানবদেহে প্রবেশ করছে। সুপারকম্পিউটার এমন অ্যান্টিভাইরাল ওষুধের হদিশ করছে, যা ওই কাঁটাকে অকার্যকর করে ফেলতে পারে।

আমেরিকায় এই মেশিনগুলো ৭৭টি মলিকিউল খুঁজে বার করে ফেলেছে, যা এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর হতে পারে। পরের ধাপ হলো তালিকাকে আরও নিখুঁত করা এবং ভাইরাসের পক্ষে সবচেয়ে কার্যকর ওষুধকে চিহ্নিত করা।

এই সুপারকম্পিউটার নোভেল করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরিতেও সাহায্য করছে। এছাড়া সুপারকম্পিউটার এই ভাইরাসের গঠন ও উৎপত্তি খুঁজে বের করা, জনসমষ্টির মধ্যে ছড়ানোর গতি বিশ্লেষণ করবার এবং মানবশরীরের কোষে কীভাবে তা কাজ করে, তা বোঝার ব্যবস্থা করছে।

কোথায় ব্যবহার করা হচ্ছে সুপার কম্পিউটার?

আমেরিকায় বিশাল আকারে সরকারি-বেসরকারি যৌথ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, যাতে আইবিএম, গুগল, আমাজন, এমআইটি এবং কার্নেগি মেলনের মতো অ্যাকাডেমিক প্রতিষ্ঠান ও সরকারি ল্যাবরেটরি ও নাসার মতো সংস্থা একযোগে কাজ করছে।

জাপানে সরকার এবং দেশের শীর্ষ গবেষণা কেন্দ্র ফুগাকু সুপারকম্পিউটার ব্যবহার করবে। এটি কে কম্পিউটারের উত্তরসূরী। কে কম্পিউটার আগে পৃথিবীর দ্রুততম হিসেব সক্ষম কম্পিউটার হিসেবে পরিচিত ছিল।

উপসর্গবিহীন কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় চীনের প্রোটোকল কী?

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের রিপোর্ট অনুযায়ী, চীনে কোভিড-১৯ রোগীর বুকের স্ক্যান পরীক্ষায় আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহারের জন্য Tianhe-1 সুপার কম্পিউটার ব্যবহার করা হচ্ছে।