এবার জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে মাছ চুরির মামলা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৩৩:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮
ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। ফাইল ছবি

এবার আশুলিয়া থানায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে মাছ চুরির অভিযোগে আরেকটি মামলা করা হয়েছে।

আগের চারটি মামলার মতো এই মামলাতেও ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর পাশাপাশি গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন, সহকারী রেজিস্ট্রার গোলাম মূর্তজা বাবু, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিচালক সাইফুল ইসলাম শিশিরসহ অজ্ঞাত ৪০ জনকে আসামি করা হয়। এই মামলাসহ ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে জমি দখলের চেষ্টা, ভাঙচুর ও চুরির অভিযোগে পরপর পাঁচটি মামলা দায়ের করা হলো আশুলিয়া থানায়।

আজ বৃহস্পতিবার সর্বশেষ মামলাটি করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পাশের নলাম এলাকার বাসিন্দা কাজি রব।

কাজী রবের অভিযোগ, তাঁর জায়গায় অনধিকার প্রবেশ করার পর আসামিরা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না পেয়ে পুকুরে থাকা মাছ চুরি করে নিয়ে যায়।

এদিকে আজ বিকেলে অনুসারীদের নিয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পিএইচএ ভবনের প্রবেশের পথ বন্ধ করে দিয়েছেন একটি মামলার বাদী আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক নাসির উদ্দিন। সেখানে একটি দলকে পিএইচএ ভবনের প্রবেশমুখে নিরাপত্তাকর্মীদের শেড ভাঙচুর করতে দেখা যায়। আরেকটি দল গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভেতরে থাকা জমি দখলে নিয়ে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেন।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক দীপু জানান, প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় মামলা গ্রহণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন জানান, ‘মামলার বিষয়ে কি আর বলব। কিছুই বলার নেই। এভাবে একটির পর একটি মামলা দায়ের করা হচ্ছে। একটি মামলায় জামিন নিতে না নিতেই আরেকটি মামলা হচ্ছে।’

গত মঙ্গলবার তিনজন ম্যাজিস্ট্রেটের তত্ত্বাবধানে গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এবং গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের কারখানায় একযোগে অভিযান চালান র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। নানা অনিয়মের অভিযোগে প্রতিষ্ঠান দুটিকে ২৫ লাখ টাকা জরিমানার পাশাপাশি গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস এন্টিবায়োটিক ইউনিট সিলগালা করে দেওয়া হয়।

এর আগে আশুলিয়ায় জমি দখলের চেষ্টা, ভাঙচুর ও চুরির অভিযোগে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করা হয়। উচ্চ আদালত থেকে এই তিন মামলায় আগাম জামিন নেন ডা. জাফরুল্লাহ। এর আগে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের টক শোতে সেনাপ্রধান সম্পর্কে অসত্য বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করা হয়।