কিশোরগঞ্জে নতুন করে চিকিৎসকসহ ৩ জনের করোনা শনাক্ত

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৮:৩৩:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০

কিশোরগঞ্জ জেলায় নতুন করে এক চিকিৎসকসহ তিনজনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ ধরা পড়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট ১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) বিকালে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে সোমবার (১৩ এপ্রিল) ২৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এ পাঠানো হয়েছিল। তাদের মধ্যে তিনজনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এই তিনজনের মধ্যে একজন চিকিৎসকসহ করিমগঞ্জ উপজেলার দুইজন ও ভৈরব উপজেলার একজন রয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান আরো জানান, সোমবার (১৩ এপ্রিল) পর্যন্ত মোট ২০৬ জনের কোভিড-১৯ নমুনা পাঠানো হয়েছিল। তাদের মধ্যে মোট ১৮ জনের করোনা পজেটিভ এবং বাকি ১৮৮ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। উপজেলাওয়ারী হিসেবে করিমগঞ্জ উপজেলায় সর্বোচ্চ ৮ জন, ভৈরব উপজেলায় ৩ জন, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ২ জন, ইটনা উপজেলায় ২ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২ জন এবং হোসেনপুর উপজেলার একজন করোনা শনাক্ত হয়েছেন।

এরমধ্যে গত ৬ এপ্রিল করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের মারা যাওয়া সেলিম মিয়া ও তার পরিবারের তিন সদস্য রয়েছেন। সেলিম মিয়ার মা, ভাই ও স্ত্রী’র নমুনায় কোভিড-১৯ পজেটিভ ধরা পড়েছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) কোভিড-১৯ পজেটিভ করিমগঞ্জ উপজেলার দুইজনের মধ্যে একজন করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক। এছাড়া অপরজন জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের মারা যাওয়া সেলিম মিয়ার করোনা শনাক্ত হওয়া ভাই মামুন মিয়ার বন্ধু।

এর আগে সোমবার (১৩ এপ্রিল) করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুইজন চিকিৎসকের কোভিড-১৯ পজেটিভ আসে। এরপর হাসপাতালটি লকডাউন করে দেয়া হয়। অন্যদিকে নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া অপরজন ভৈরব উপজেলার। ভৈরব উপজেলায় এর আগে ভৈরব থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা (এসআই) ও একজন ওষুধ ব্যবসায়ী কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া এর আগে করোনা শনাক্ত অন্যরা হলেন, কিশোরগঞ্জ শহরের আলোরমেলা এলাকার একজন চিকিৎসক ও বত্রিশ এলাকার একজন নারী স্বাস্থ্যকর্মী, পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী চরপাড়া এলাকার এক ব্যক্তি ও একই উপজেলার এলাকার তার শ্বশুর, ইটনা উপজেলার জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের পাগলশী গ্রামের একজন নারী ও ইটনা সদর ইউনিয়নের বেতেগা গ্রামের সাবেক এক ইউপি সদস্য এবং হোসেনপুরের ধনকুড়া গ্রামে ঢাকা থেকে আসা একজন প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের চাকুরে (৪০)। সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) নতুন করে ২২ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এ পাঠানো হয়েছে।