কুমিল্লায় গ্যাস বিষ্ফোরন আতঙ্কে ৯ গ্রামের মানুষ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২২ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৭, ২০১৯ | আপডেট: ১২:২২:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৭, ২০১৯

কুমিল্লা প্রতিনিধি।।কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের নবীপুরেরকান্দা বিলে ড্রেজারে মাটি কাটার ফলে গ্যাস ট্রান্সলেশন কোম্পানী লিমিটেড(জিটিসিএল) এর ১৭ ইঞ্চি মোটা প্রায় দেড়শ’ ফুট লম্বা গ্যাস পাইপটি গত তিন বছর ধরে ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। ফলে আতঙ্কে রয়েছে আশ-পাশের ৯টি গ্রামের মানুষ। গ্রামগুলো হচ্ছে- নবীপুর, নবীপুরেরকান্দা, মধ্যনগর, সোলাপুকুরিয়া, বাহারামেরকান্দা, মুরাদনগর, রহিমপুর, ছিলমপুর, মোচাগড়া।

স্থানীয়রা জানান, গত ১০বছর আগে নবীপুর গ্রামের সনাতন ধর্মের এক লোকের কাছ থেকে বাহারামেরকান্দা গ্রামের আনু মিয়া জমিটি ক্রয় করেন। পরে তিনি মারা গেলে তার ছেলে হোসেন মিয়া গত তিন বছর আগে ড্রেজার মালিকের কাছে জমির মাটি বিক্রয় করে দেন।

মাটি খনন করা অবস্থায় গ্যাস পাইপটি মাটির নিচ থেকে ভেসে উঠলে এলাকার লোকজন বাধা দেয়। কিন্তু হোসেন মিয়া কারো বাধা না মেনে ড্রেজার মালিককে দিয়ে জমির পুরো মাটি খনন করে ফেলেন। খবর পেয়ে গ্যাস অফিস থেকে গত তিন বছরে দফায় দফায় গ্যাস অফিসের লোক এসে দেখে যান। তারা গ্যাস পাইপটি নিরাপওা দেওয়ার কোন ব্যাবস্থা গ্রহণ করেননি।

কৃষক গনি মিয়া জানান, গত তিন বছর ধরে এই গ্যাস পাইপের ভয়ে নবীপুরেরকান্দা বিলে জমি চাষ করা বন্ধ কইরা দিছি। হুনছি এইডা ছুটলে নাকি কেয়ামত হইয়া যাইবো।

গ্যাসের কাজে সংশ্লিষ্ট এক ব্যক্তি জানান, এই ১৭ ইঞ্চি পাইপটির ভিতর দিয়ে ৩২ হাজার ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ হয়ে থাকে। যদি কোন কারনে এই পাইপটি ভেঙ্গে বা লিকেজ হয়ে বিষ্ফোরিত হয় তবে আশ-পাশের আট দশ গ্রামের মানুষ বড় ধরনে ক্ষতির সম্মুখীন হবে।

এ বিষয়ে দেবিদ্বার গ্যাস অফিসের সহকারী ইঞ্জিনিয়ার অতুল কুমার বলেন, নবীপুরেরকান্দায় যে লাইনটি তা বাখরাবাদ গ্যাসের আওতাভূক্ত নয়। লাইনটির মূল অথরিটি হচ্ছে গ্যাস ট্রান্সলেশন কোম্পানী লিমিটেড(জিটিসিএল)। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।