কুড়িগ্রামে ‘বৃষ্টির জন্য’ ব্যাঙের বিয়ে

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৮ | আপডেট: ৫:২৪:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৮

টিবিটি দেশজুড়েঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বৃষ্টির জন্য ব্যাঙের বিয়ে দিয়েছে এলাকাবাসী। আজ শুক্রবার উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের চাকিরপশার তালুক জোলাপাড়া গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরে কুড়িগ্রাম জেলার রাজারহাট উপজেলায় অনাবৃষ্টি দেখা দেয়। প্রচন্ড তাপদাহে এ অঞ্চলের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। এমনকি বৃষ্টির অভাবে কৃষকরা স্যালো মেশিন ও বৈদ্যুতিক সেচ পাম্প ব্যবহার করে আমন ধানের চারা রোপন করেন।

প্রখর রোদ্রের কারণে শিশু-বয়বৃদ্ধরা সর্দি-জ্বরসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। দিবা-রাত্রে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষজন বিশেষ কাজকর্ম ছাড়া বাইরে বের হয় না।

বিদ্যুতের লোডশেডিং হলে মানুষ আরও অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। খরায় আমন ধানের ক্ষেত ফেঁটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে। শাক-সবজির ক্ষেতও রোদের তাপে পুড়ে মরে যাচ্ছে। মাঝে মাঝে আকাশে মেঘ থাকলেও বৃষ্টি নেই। অনাবৃষ্টির কারণে খাল-বিল পানি শুকিয়ে যাচ্ছে। খাল-বিলের মাছ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বাজারে মাছের অভাব দেখা দিয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে শুক্রবার রাজারহাট উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের চাকিরপশার তালুক জোলাপাড়া (হিন্দুপাড়া) গ্রামের গৃহবধূরা বৃষ্টির জন্য ব্যাঙের বিয়ের আয়োজন করে। ওইদিন দুপুরে বিষাদুর বাড়ির উঠানে হিন্দুশাস্ত্রীয় মতে দুটি ব্যাঙ ধরে নিয়ে এসে বর-কনে সাজিয়ে রাখে। ওই উঠানে কলারগাছ পুঁতে মারোয়া সাজিয়ে ধুমধাম করে ব্যাঙ দুটির বিয়ে দেওয়া হয়।

পরে বর-কনেকে নিয়ে গ্রামবাসীরা নগর পরিভ্রমণ করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শত শত দশণার্থী ব্যাঙের বিয়ে দেখতে ওই এলাকায় ভিড় জমায়। বিয়ের পরে উপস্থিত দশনার্থীদের ভূড়িভোজের আয়োজন করা হয়। বিয়ের সম্পূর্ণ আয়োজন করেন বীরেন্দ্র নাথ রায়ের স্ত্রী প্রমোবালা দেবী।

এ বিষয়ে প্রমোবালা দেবী জানান, অতি খরা (অনাবৃষ্টি) হলে ব্যাঙের বিয়ে দিতে হয়। ব্যাঙের বিয়ে দিলে ঝড়ি (বৃষ্টি) হয়। আগের দিনের লোকজন প্রায় ব্যাঙের বিয়ে দিত।

ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হোসেন সোহরাওয়ার্দী বাপ্পি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমিও জোলাপাড়ার হিন্দু পাড়ায় ব্যাঙের বিয়ের বিষয়টি শুনেছি।’