কোটা বহালের দাবিতে চট্টগ্রামে সড়ক অবরোধ, যান চলাচল বন্ধ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:৪৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০১৮ | আপডেট: ১:৪৮:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৮, ২০১৮

কোটা বহালের দাবিতে চট্টগ্রাম নগরীর সিটি গেইট এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের কোটা বহালের দাবিতে অবরোধে এসময় রাস্তার দুই পাশে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

সোমবার (৮ অক্টোবর) সকাল ১০টা দিকে শতাধিক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সড়কে অবস্থান নিয়ে সড়ক আবরোধ করে। আকবরশাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘সকালে কোটা বহালের দাবিতে রাস্তায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে রাস্তা থেকে তাদের সরিয়ে দিয়েছি। যান চলাচল স্বাভাবিক হচ্ছে।’

এদিকে যানজটে আটকে পড়া বাসযাত্রী মনজুর মোরশেদ বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা রাস্তা বন্ধ করেন বিক্ষোভ করায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আমরা প্রায় এক ঘন্টা বাসের মধ্যে বসে রয়েছি।’

এর আগে সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের দাবিতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। রবিবার (৭ অক্টোবর) দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ‘আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, প্রতিবাদী কেন্দ্রীয় কমিটির’ ব্যানারে এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা।

তারই ধারাবাহিকতায় প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের প্রতিবাদে চার ঘন্টা খুলনা-কুষ্টিয়া মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) অধ্যায়নরত মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। রবিবার (৭ অক্টোবর) বেলা ১২টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত দীর্ঘ চার ঘন্টা রাস্তা অবরোধ করে রাখে তারা।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে নিয়োগে কোটা বাতিলের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ। শিগগির প্রজ্ঞাপন জারি হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ সফিউল আলম।

এরপরই সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। তাদের দাবি করেন, ৩০ শতাংশ কোটা বহাল রাখতে হবে।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে প্রায় শ’খানেক আন্দোলনকারী একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশ থেকে শাহবাগে মোড়ে যান। পরে সেখানে সবদিকের রাস্তা বন্ধ করে তারা সড়কে অবস্থান নেন।

৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল রাখা ছাড়াও তাঁদের অন্য দাবিগুলো হলো মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাংবিধানিক অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য সুরক্ষা আইন, রাজাকারের সন্তানদের সরকারি চাকরিতে নিয়োগ না দেওয়া ও তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা।