কোটিপতি আইসক্রিমওয়ালা!

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪২ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৫, ২০১৮ | আপডেট: ১০:৪২:পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৫, ২০১৮
ছবি: গার্ডিয়ান

পাকিস্তানের একটি বস্তিতে বসবাস করেন আইসক্রিম বিক্রেতা আব্দুল কাদির। স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে ভালোই দিন কাটাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু হঠাৎই এক অনাকাঙ্ক্ষিত বিপদ এসে হাজির হয়েছে তার দুয়ারে।

দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (এফআইএ) কর্মকর্তারা তাকে ধরে নিয়ে গিয়ে জেরা শুরু করেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি অর্থপাচারে জড়িত। আব্দুল কাদিরকে জানানো হয়, তার ব্যাংক হিসাবে দুই কোটি ৩০ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে।

৫২ বছর বয়সী এ প্রৌঢ় বলেন, দুনিয়াতে আমার মতো দুর্ভাগা আর কেই নেই। যখন আমি জানতে পারলাম, আমার ব্যাংক হিসাবে দুই কোটির বেশি রুপি আছে, তখন তা উধাও হয়ে গেছে।

বন্দরনগরী করাচির ওরগানি বস্তিতে নিজের ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে এই কপর্দকশূন্য কোটিপতি বলেন, হঠাৎ করেই তার জীবনে এমন বিপর্যয় নেমে এসেছে। এ নিয়ে তার ন্যূনতম ধারণা নেই।

দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা ৭৭টি ব্যাংক হিসাবের বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অভিযোগ তদন্ত করছে। এসব অ্যাকাউন্ট বিভিন্ন শ্রমিক, নিরাপত্তা প্রহরী ও অন্যান্য নিম্ন পেশার লোকজনের নামে খোলা হয়েছে, যা দিয়ে সাড়ে তিন হাজার কোটি রুপি পাচার করা হয়েছে বলে ধরে নেয়া হচ্ছে।

বলা হচ্ছে- দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আল জারদারি এ পাচারে জড়িত। অবৈধ অর্থ আয়ের জন্য যিনি দেশটিতে টেন পার্সেন্ট হিসেবে খ্যাত।

আব্দুল কাদিরের ব্যাংক হিসাব থেকে অর্থপাচার হচ্ছে বলে বছর দুয়েক আগে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংক দেশটির কেন্দ্রীয় সংস্থাকে জানায়। ২০১৪ থেকে ১০১৫ সালের মধ্যে যেটি খোলা হয়েছিল। এর মধ্যে সেটি থেকে কয়েক কোটি রুপি তুলে নেয়া হয়েছে।

শেষ পর্যন্ত এফআইএ নিশ্চিত হয়েছে যে আব্দুল কাদির এ অর্থপাচারে জড়িত নয়। যদিও তার জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করেই সেটি খোলা হয়েছে।

অথচ এই অর্থ লেনদেনের ব্যাপারে তার কোনো ধারণাই নেই। তার ব্যাংক হিসাব থেকে যে দুই কোটি ৩০ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে, সেসব চেকেও তিনি কোনো সই করেননি। অবশ্যই এ আইসক্রিমওয়ালা নিজে লিখতে বা পড়তেও জানেন না।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর তাকে দ্বিতীয়বার জেরা করার জন্য ডাকা হয়। তখন তিনি বলেন, আমার ব্যাংক হিসাবে যদি কোটি কোটি রুপি থাকে, তা হলে আমি এ বস্তিতে থাকব কেন? আইসক্রিম বিক্রি করেও বা রোজগার করব কেন?

ইতিমধ্যে এ ঘটনা তার জীবনকে অতিষ্ঠ করে তুলেছে। প্রতিদিন আইসক্রিম বিক্রি করে মাত্র তিন ডলার আয় করেন আব্দুল কাদির। কিন্তু তার ব্যাংক হিসাবে বিপুল অর্থ থাকার কথা প্রতিবেশীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে তিনি আর বাইরে বের হতে পারেন না।

দুই সন্তানের এ বাবা বলেন, লোকজন আমাকে কটাক্ষ করতে থাকেন। আমাকে দেখলেই বলেন, দেখ, রাস্তায় কোটিপতি আইসক্রিম বিক্রি করছেন।

ছিনতাইকারীরা পিছু লাগতে পারে বলেও তার পরিবারের সবাই আতঙ্কিত থাকতে হচ্ছে। তার এক বন্ধু বলেন, তিনি সত্যিকার কোটিপতি হলে আইসক্রিমের গাড়ি নিয়ে ফুটপাথে দাঁড়িয়ে থাকতে হতো না। সত্যিকার অর্থে তিনি কপর্দকশূন্য।