গোয়ার্তুমি করা সেই পাদ্রির ভাইরাসে মৃত্যু

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৪৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০ | আপডেট: ৯:৪৩:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৪, ২০২০

করোনার দাপটে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। বর্তমানে দেশটিতে সবচেয়ে বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত। আর মৃত্যুর দিক দিয়েও এক নম্বরে রয়েছে দেশটি। করোনা ঠেকাতে দেশটিতে চলছে লকডাউন। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে বলা হয়েছে। বাড়ির বাইরেও বের না হতে সবাইকে বলা হয়েছে মার্কিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

করোনার এই দুঃসময়ে কয়েক সপ্তাহ আগে ভার্জিনিয়া চার্চের বিশপ জেরাল্ড গ্লেন গর্ব করে বলেছিলেন, তিনি জেলে না যাওয়ার আগ পর্যন্ত চার্চে থাকতে চান। এই পাদরির ধারণা ছিল তিনি হয়তো করোনায় আক্রান্ত হবেন না। তিনি বলেছিলেন, আমি বিশ্বাস করি করোনাভাইরাসের চেয়ে ঈশ্বর বেশি শক্তিশালী। আপনারা এটি লেখে রাখতে পারেন।

জেরাল্ড গ্লেন বিতর্কিতভাবে ঘোষণা করেছিলেন, তিনি নিরাপত্তা প্রোটোকল লঙ্ঘন করেছেন। নিজেকে অপরিহার্য ঘোষণা করে গির্জাকে উন্মুক্ত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন গ্লেন। তখন তিনি বলেছিলেন, আমি একজন ধর্মপ্রচারক। আমি ঈশ্বরের সঙ্গে কথা বলি। কিন্তু তিনিও করোনার মারণ থাবার হাত থেকে রেহাই পাননি। করোনায় আক্রান্ত হয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

শেষ পর্যন্ত কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে শনিবার রাতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছে চেস্টারফিল্ডের নিউ ডেলিভারেন্স ইভানজেলিস্টিক গির্জা।

চেস্টারফিল্ডে এই গির্জাটির প্রতিষ্ঠাতা ও যাজক ছিলেন ৬৬ বছর বয়সী বিপশ জেরাল্ড ও. গ্লেন।

ডেলিভারেন্স ইভানজেলিস্টিক গির্জা কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র ব্রায়ান নেভাস ইস্টারের ধর্মীয় বক্তৃতা দেওয়ার সময় বিপশ গ্লেনের মৃত্যুর কথা ঘোষণা করেন।

বিপশ গ্লেনের ৬৫ বছর বয়সী স্ত্রী মাদার মারশিয়েশা গ্লেনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে তাদের কন্যা মারগেরি ক্রাওলি জানিয়েছেন।

বিপশ গ্লেনের মৃত্যুতে ভার্জিনিয়ার সিনেটর টিম কেইনও শোক জানিয়েছেন।

পোপ ফ্রান্সিস থেকে শুরু করে স্থানীয় যাজকরাও যখন সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলছেন তখন সেই বিধি অস্বীকার করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন বিশপ গ্লেন।

তার মতো আরও কয়েকজন গির্জা প্রধান গভর্নর ও জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের আবেদন অগ্রাহ্য করে গির্জার কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছিলেন।

গত মাসে শতাধিক উপাসক নিয়ে প্রার্থনা চালানোর পর ফ্লোরিডায় পেন্টাকোস্টাল মেগাচার্চের এক যাজককে গ্রেপ্তার করা হয়।

১৭ মার্চ ভার্জিনিয়ার গভর্নর রাল্ফ এস. নরর্থহ্যাম সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ফেডারেল গাইডলাইন অনুযায়ী ভার্জিনিয়াবাসীকে ১০ জনের বেশি সমবেত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

কিন্তু ২২ মার্চ এক ধর্মীয় সভার আয়োজন করে বিশপ গ্লেন তা অগ্রাহ্য করেন। তার গির্জার ওই সমাবেশে কয়েক ডজন অনুসারী সমবেত হয়েছিলেন।