চলচ্চিত্রের ‘মা’ অসুস্থ রেহানা জলির চিকিৎসা বন্ধ

টিবিটি টিবিটি

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৬:৫৮:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮

প্রায় ৪০০ ছবিতে মায়ের চরিত্রে অভিনয় করা রেহানা জলি এখন শয্যাশায়ী। চিকিৎসার খরচ আর চালাতে পারছেন না বলে হাসপাতাল ছাড়তে হয়েছে তাঁকে। তিন মাস ধরে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাও আর নিতে পারছেন না এই শিল্পী। শুধু মায়ের চরিত্রে নয়, নায়িকা হিসেবেও কাজ করেছেন ৩৫টি ছবিতে। তবে বর্তমানে ফুসফুসে সংক্রমণ ও মেরুদণ্ডের হাড় ক্ষয়ের কারণে চলচ্চিত্রে আর কাজ করতে পারছেন না তিনি, পড়েছেন অর্থসংকটে।

গতকাল বুধবার রেহানা জলিকে দেখতে তাঁর বাসায় যান চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রেবেকা ও নায়িকা শাহনূর। তাঁদের দেখে উৎফুল্ল হয়ে ওঠেন জলি। তিনি বলেন, ‘প্রায়ই এরা আসে আমার খবর নিতে। কিন্তু আর কেউ খবর নিতে আসে না। এতটা দিন হাসপাতাল আর বাসায় শুয়ে আছি অথচ কেউ খবর নিল না।’

অসুস্থতা নিয়ে রেহানা জলি বলেন, ‘গত এক বছর আগে আমার মা মারা যান। তারপর থেকেই আমি অসুস্থ। প্রথমে বুঝতে পারিনি। তারপর চিকিৎসা করাতে গিয়ে দেখি আমার ফুসফুসে ইনফেকশন দেখা দিয়েছে। মেরুদণ্ডের একটি হাড় ক্ষয় হয়ে গেছে। টানা সাত মাস ধরেই চিকিৎসা নিয়েছি। তিন মাস ধরে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খেলেও টাকার অভাবে সঠিক চিকিৎসা নিতে পারছি না।’

সংসারের ঘানি টানতে টানতে রেহানা জলি আর অর্থ সঞ্চয় করতে পারেননি। তাই এখন যখন অর্থের প্রয়োজন তখন তিনি অসহায় হয়ে পড়েছেন। জলি বলেন, ‘আমরা বাবা মারা জান ৮৩ সালে। আমরা চার বোন আর এক ভাই। আমি সবার বড়। ভাইটি ছোটবেলায় মারা গেছেন। মাত্র বারো বছর বয়স থেকেই চার বোন আর মায়ের দায়িত্ব নিতে হয়েছে আমাকে। তারপর থেকেই কাজ করে যাচ্ছি সংসারের বোঝা মাথায় নিয়ে। বিয়েটা পর্যন্ত করার চিন্তা করতে পারিনি। যা টাকা কামিয়েছি তার সব পরিবারের জন্যই খরচ করেছি। এখনো আমরা চারবোন এক সঙ্গে এক বাড়িতে থাকি।’

নিজের দুরাবস্থার কথা বলতে গিয়ে জলি আরো বলেন, ‘আমার বোনগুলো আমার মায়ের মতো। আমরা একে অপরের জন্য জীবন দিতে পারি। আমার বোনদের ব্যাংকে যে টাকা ছিল তার সব শেষ। এমনকি যে গহনা ছিল তাও বিক্রি করেছে। এখন আর কিছু আমাদের নেই যা বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে পারি। বোনদের সেবা আর ভালোবাসায় আমি এখনো বেঁচে আছি। প্রতি সপ্তাহে ডাক্তারের পরীক্ষা আর ওষুধ মিলে প্রায় ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়। মাসে প্রায় দুই লাখ টাকার বিষয়। যতটুকু পেরেছি চিকিৎসা করেছি। এখন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে শুধু ওষুধ খাচ্ছি।’

রেহানা জলির ছোট বোন লাইজু আক্তার বলেন, ‘ডাক্তারের সাথে কথা হয়েছে, নিয়মিত চিকিৎসা করানো গেলে আমার বোন সেরে যাবে। এটা ক্যান্সার নয় যে ভালো হবে না। কিন্তু আমরা তো আর চিকিৎসা এগিয়ে নিতে পারছি না। আমরা এখন আপাকে বাঁচাতে সাহায্য চাই। আমার বোন প্রায় ৪০০ ছবিতে কাজ করেছেন। শিল্পী হিসেবে দেশের মানুষ তাঁকে সম্মান করে। অথচ এখন টাকার অভাবে তিনি মারা যাচ্ছেন। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাহায্য চাই। আমার এই বোন আমাদের বড় করেছেন মায়ের মতো করেই। উনি নিজেও মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। একজন মাকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী নিশ্চয় এগিয়ে আসবেন।’

১৪ বছর বয়সে ‘মা ও ছেলে’ ছবিতে মায়ের চরিত্র দিয়ে অভিনয় শুরু করেন রেহানা জলি। ১৯৮৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই ছবির অভিনয়ের জন্য ১৯৮৬ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি।

-এনটিভি অনলাইন।