ঢাবিতে ব্যক্তিগত ব্যানার চলবে না, উচ্চস্বরে হর্ণ বাজাবেন না: ছাত্রলীগ

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৫৯ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৫৯:পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যেকোন ধরণের ব্যক্তিগত ব্যানার, ফেস্টুন টানাতে নিষেধ করেছ ছাত্রলীগ। সেই সাথে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যত্রতত্র পার্কিং ও উচ্চস্বরে হর্ণ না বাজাতেও অনুরোধ করা হয়।

আজ ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

ব্যক্তিগত প্রচারণা ক্ষেত্র যেন না হয়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, এই লক্ষ্যে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ”একই সাথে ক্রিয়াশীল সকল ছাত্র সংগঠনকে আহ্বান জানাচ্ছি, বিশ্ববিদ্যালয় পরিমন্ডলের মধ্যে কোন অবস্থাতেই যেন ব্যক্তিগত পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন, ব্যবহার না করা হয়। এর অন্যথা হলে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অনুরোধ জানাব সংশ্লিষ্ট বিধি অনুযায়ী যথাপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে।’

যত্রতত্র পার্কিং, উচ্চস্বরে হর্ণ বাজাবেন না:

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ”আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে আরেকটি বিষয় লক্ষ্য করছি যে, অযথা মোটর বাইক যত্রতত্র পার্কিং এবং উচ্চস্বর হর্ণের মাধ্যমে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ বিনষ্ট করা হচ্ছে। এ বিষয়ে সবাইকে দায়িত্বশীল আচরণের জন্য বলা হচ্ছে। আমারে সম্মিলিত প্রয়াসই কেবল আমাদের স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপহার দিতে পারে।”

ঢাবিকে ‘গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়ে’ রুপান্তরের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে কাজ নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখার আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। এই লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে একটি সংক্ষিপ্ত রুপরেখা দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি ‘গবেষণা বিশ্ববিদ্যালয়’-এ রুপান্তর করার অংশীজন হিসেবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উন্নত মানের শিক্ষার পরিবেশ, একাডেমিক বৈশ্বিক মান নিশ্চিত করতে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ।

এ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে আমরা সংশ্লিষ্ট সকলকে আহ্বান জানাব, শিক্ষার পরিবেশে ন্যূনতম বিচ্যূতি ঘটায় এ ধরনের রাজনৈতিক সক্রিয়তা যেন প্রর্শন না করা হয়। সকল অনুষদ, বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা যেন তাদের নিজস্ব পরিবেশে, স্বকীয়তা বজায় রেখে যার যার স্বাভাবিক একাডেমিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারে এ বিষয়ে সকলের সচেতনতা প্রত্যাশা করছি।’

রাজনীতি যেন শিক্ষাক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি না করে, এই উদ্দেশ্যে বলা হয়, ”আমাদের প্রত্যাশা রাজনৈতিক সক্রিয়তা যেন বিদ্যায়তনিক পরিবেশের ব্যাঘাত ঘটানোর কারণ না হয়।

ছাত্ররাজনীতির আঁতুরঘর মধুর ক্যান্টিনের পাশেই ‘ইনিস্টিটিউট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন’-(আইবিএ) এর একাডেমিক ভবনটি অবস্থিত। আন্তর্জাতিক পরিসরে এ ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের সাফল্য বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সুনাম অবিরত বৃদ্ধি করে চলেছে; ছাত্র রাজনীতির কর্মীরা যেন এর একাডেমিক সংবেদনশীলতার প্রতি সর্বোচ্চ সচেতনতা প্রদর্শন করে। অন্যান্য অনুষদ, বিভাগ ও ইনস্টিটিউটেও একাডেমিক পরিবেশ নির্বিঘ্ন রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে সনির্বদ্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।