ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ, কর্তৃপক্ষের অস্বীকার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৮ | আপডেট: ৪:১৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৮
ফাইল ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের চলতি শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। তবে, এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর।

জানা যায়, শুক্রবার (১২ অক্টোবর) সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বাইরে ৮১টি কেন্দ্রে ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরে একটি প্রশ্নপত্র পাওয়া যায়, যেখানে প্রশ্নগুলোর উত্তরও লেখা ছিল।

তাৎক্ষণিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর সোহেল রানাকে এ বিষয়ে অবহিত করা হয়। পরীক্ষা শেষে হাতে লিখিত প্রশ্নপত্রের সাথে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের মিল পাওয়া যায়।

বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী তার কার্যালয়ে আসেন। তখন সাংবাদিকরা প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এখন পযর্ন্ত কোনো নির্ভরশীল সূত্র থেকে প্রশ্নফাঁস হয়েছে, এটা নিশ্চিত হতে পারিনি। যে অভিযোগ উঠেছে তা প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে সংশ্লিষ্ট নয়, ভর্তি পরীক্ষা জালিয়াতির সাথে সংশ্লিষ্ট হতে পারে। আর প্রশ্নপত্র ফাঁস আর ডিজিটাল জালিয়াতি এক নয়। কঠোর সতর্কতার মধ্য দিয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ জন্য জালিয়াতি বা প্রশ্নফাঁসের কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি তদন্ত করে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কঠোর সতর্কতার মধ্য দিয়ে ভর্তি পরীক্ষাগুলো নিচ্ছে। তাই পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে অসদুপায় অবলম্বনের কোনো সুযোগ নেই। যদি প্রশ্নপত্র ফাঁস না হয়, তবে এটাকে ডিজিটাল জালিয়াতি বলা যেতে পারে। এই ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে আজকে কাউকে আটকও করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ডিজিটাল জালিয়াতি বন্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যর্থ হয়েছে কিনা সাংবাদিকরা জানতে চাইলে প্রক্টর বিষয়টি এড়িয়ে যান।

যদি তদন্তে প্রশ্নপত্র ফাসেঁর বিষয়টি প্রমাণিত হয় তবে পুনরায় পরীক্ষা নেওয়া হবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগটি যদি প্রমাণিত হয়, তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম-নীতি অনুসারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।