তলপেট ব্যথাকে এদমই অবহেলা নয়, হতে পারে প্রোস্টেট ক্যান্সার!

প্রকাশিত: ১০:০৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২, ২০১৯ | আপডেট: ১০:০৪:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২, ২০১৯

গোটা বিশ্বে ফুসফুসের ক্যান্সারের পর প্রোস্টেট ক্যান্সারেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক পুরুষের মৃত্যু হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রোস্টেট ক্যান্সার ধরা পড়লে রোগীকে প্রাণে বাঁচানো সম্ভব। তবে চিন্তার বিষয় হল, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই প্রাথমিক পর্যায়ে প্রোস্টেট ক্যান্সারের লক্ষণগুলো চিনতে পারা যায় না। যখন সমস্যা মারাত্মক আকার ধারণ করে, তখন রোগীকে বাঁচানো প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়।

প্রতিবছর বিশ্বজুড়ে প্রায় আড়াইলাখ মানুষ নতুন করে প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। তার মধ্যে ৩০ হাজারের মতো মৃত্যু ঘটে। প্রোষ্টেট গ্ল্যান্ডের কোষ যখন ফুলে উঠে এবং তা ম্যালিগন্যান্ট কোষে রূপ নেয়, তখন ক্যান্সারে পরিবর্তিত হয়। তবে প্রোষ্টেট গ্ল্যান্ড বড় হওয়া মানেই যে ক্যান্সার, তা কিন্তু নয়।

প্রোষ্টেট হলো শ্রোনীচক্রের ভেতরের একটি ছোট গ্রন্থি যা একমাত্র পুরুষেরই থাকে। আখরোট আকারের এ গ্রন্থিটি পুরুষাঙ্গ ও মূত্রাশয়ের মধ্যে অবস্থান করে। এটি মুত্রানালী ঘিরে থাকে। প্রোষ্টেট বীর্য উৎপাদনে সাহায্য করে।

পঞ্চাশ পেরুনো পুরুষদের মধ্যে প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি। প্রোস্টেট ক্যান্সার নির্ধারণের মূল হাতিয়ার হল, পিএসএ টেস্ট বা প্রোস্টেট স্পেসিফিক অ্যান্টিজেন টেস্ট। এই রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে প্রোস্টেট ক্যান্সার নির্ধারণ করা হয়। রক্তে পিএসএ-র মাত্রা সাধারণত ১ থেকে ৪-এর মধ্যেই থাকে। তবে কারো রক্তে পিএসএ-র মাত্রা ৪-এর বেশি হওয়া মানেই যে তিনি প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত, তা ধরে নেওয়ার কোনো কারণ নেই। এরই সঙ্গে ডিজিটাল রেক্টাল টেস্ট করাতে হবে। এই টেস্টে প্রোস্টেট কোনো রকম স্ফীতি বা ফোলাভাব লক্ষ্য করলে বায়োপসি করানো জরুরি। তবেই প্রোস্টেট ক্যান্সারের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

প্রোস্টেট ক্যান্সারের লক্ষণ:

১. প্রস্রাবের সময় যদি সমস্যা হয় বা মূত্রত্যাগের গতি কমে যায়, সে ক্ষেত্রে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া জরুরি। তবে এ ধরনের সমস্যা মূত্রনালীর সংক্রমণের কারণেও হতে পারে।
২. প্রস্রাবের রং স্বাভাবিকের থেকে গাঢ় হলে, মূত্রত্যাগের সময় তলপেটে ব্যথা বোধ করলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া জরুরি। কারণ, এটি প্রোস্টেট ক্যান্সারের অন্যতম একটি লক্ষণ।
৩. প্রস্রাবের সময় যদি প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত বের হয় বা যদি কোনো রকম ব্যথা বা জ্বালা বোধ করেন তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।
৪. হাড়ে ব্যথা বোধ করলে, বিশেষ করে মেরুদণ্ডে বা কোমরে ব্যথা হলে তা প্রোস্টেট ক্যানসারের লক্ষণ হতে পারে।

এছাড়াও বীর্যের সঙ্গে রক্ত, তলপেটে অসহ্য যন্ত্রণা, প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যাওয়া ইত্যাদি প্রোস্টেট ক্যানসারের অন্যতম লক্ষণ। তাই এসব লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ভাল থাকুন, ভাল রাখুন।