নতুন মন্ত্রিসভার জন্য যাদের প্রথম ফোন করা হবে!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০১৯ | আপডেট: ১১:০৭:পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০১৯
সংগৃহীত

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার পর শপথ নিয়েছেন আওয়ামী লীগ ও জোটের এমপিরা। এবার সবার দৃষ্টি নতুন মন্ত্রিসভার দিকে। এর আকার কেমন হবে, কারা বাদ পড়ছেন, নতুন কারা আসছেন- এসব প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সবার মুখে মুখে।

এবার মন্ত্রিসভায় নতুন চমক থাকবে এ কথা শোনা যাচ্ছে আনেক আগে থেকেই। সেই চমকটা হতে পারে মনোনয়নবঞ্চিতদের দিয়েও। তবে কি হবে তারই অপেক্ষায় রয়েছে সবাই।

সর্বত্রই এ নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। দলমত নির্বিশেষে সবার চোখ পত্রিকা, টেলিভিশন ও অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোর ওপর। পিছিয়ে নেই ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমও।

নবনির্বাচিত এমপিদের মধ্যেও কৌতূহল- কে ডাক পাচ্ছেন আগামীকাল সোমবার বঙ্গভবনে অনুষ্ঠেয় মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগসহ ক্ষমতাসীন দলের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, এবার মন্ত্রিসভার কলেবর কমছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রস্তুত করা হচ্ছে। নতুন মন্ত্রিসভার সদস্য ব্যক্তিদের নাম, বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, অবস্থান তালিকাবদ্ধ করা হচ্ছে।

তালিকায় স্থান পাওয়া মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের শপথ অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ জানাতে আজ বিকাল থেকে টেলিফোন করা শুরু করবে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এ ক্ষেত্রে ঢাকার বাইরে অবস্থানকারীদের আগে ফোন দেয়া হবে। সোমবার সকালেও অনেকে টেলিফোন পাবেন।

সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টায় বঙ্গভবনে প্রধানমন্ত্রীসহ মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের শপথবাক্য পাঠ করাবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। শপথ অনুষ্ঠানের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই মন্ত্রিসভায় স্থান দিতে দক্ষ, যোগ্য, কর্মঠ ও ত্যাগী নেতাদের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রস্তুত করেছেন।

এ তালিকায় চমকে দেয়ার মতো কিছু নাম আছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনয়নবঞ্চিত হয়েছেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও বিএম মোজাম্মেল হক।

এদের মধ্যে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক থেকে টেকনোক্র্যাট কোটায় একজন মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী ও সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে একজনকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী করা হতে পারে।
এর বাইরে থাকা দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ ও ডা. দীপু মনির মধ্যে একজনের ঠাঁই হতে পারে নতুন মন্ত্রিসভায়।

এ তালিকায় আছেন প্রবাসীরাও। এমপি নন এমন বেশ কয়েক নেতাও আছেন। আছেন আওয়ামী ভাবাপন্ন ব্যবসায়ী, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, আইনজীবী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। এ ছাড়া তৃণমূলের দুজন নেতার নাম আছে এই তালিকায়। একঝাঁক তরুণকে স্থান দিতে বর্তমান মন্ত্রিসভার অনেক সদস্যকে বাদের তালিকায় রাখা হয়েছে।