নাজিবউল্লাহ-নবীর ঝড়ো ব্যাটে আফগানদের রান পাহাড়

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ | আপডেট: ৮:৩৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯

ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ১৯৭ রানের পাহাড় গড়েছে আফগানিস্তান। জিততে হলে ১৯৮ রান করতে হবে জিম্বাবুয়েকে।

দলের পক্ষে ৩০ বলে পাঁচটি চার ও ছয়টি ছক্কার সাহায্যে ৬৯ রান করে অপরাজিত থাকেন নাজিবউল্লাহ। ১৮ বলে চারটি ছক্কার সাহায্যে ৩৮ রান করেন মোহাম্মদ নবী। ১৫ ওভার শেষে আফগানিস্তানের রান ছিল চার উইকেটে ১০৯। শেষ পাঁচ ওভারে তারা নেয় ৮৮ রান।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে নাজিবউল্লাহ ও নবী মিলে ১০৭ রানের জুটি গড়েন। জিম্বাবুয়ের বোলারদের মধ্যে সাতারা ২টি, উইলিয়ামস ২টি ও এনডিলোভু ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

আফগানিস্তান ব্যাটিংয়ে নেমে দুর্দান্ত সূচনা করে। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারের প্রথম বলে দলীয় ৫০ রান পূর্ণ হয় আফগানদের। দলীয় ৫৭ রানে সাতারার বলে উইলিয়ামসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান জাজাই। দলের রান যখন ৬০ তখন উইলিয়ামসের বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন গুরবাজ। রিভিউ নিয়েও তিনি রক্ষা পাননি।

এরপর আসগার আফগান ও নাজিব তারাকাই জুটি বেঁধে দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন। দলীয় ৮০ রানে উইলিয়ামসের বলে এনডিলোবুর হাতে ধরা পড়েন তারাকাই। ১৪তম ওভারের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন আসগার। দ্বিতীয় বলটিও তিনি তুলে দিয়েছিলেন আকাশে। কিন্তু লং-অনে বার্লের হাতে ধরা পড়েন তিনি। ইনিংসের শেষ বলে আউট হন মোহাম্মদ নবী।

গতকাল সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে ৩ উইকেটে হারে জিম্বাবুয়ে। এই ম্যাচে হারলেও তারা লড়াই করে হেরেছে। বাংলাদেশের দলীয় ৬০ রানে ৬ উইকেট ফেলে দিয়েছিল হ্যামিলটন মাসাকাদজার দল। কিন্তু এরপর তরুণ দুই ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও আফিফ হোসেন জুটি বেঁধে বাংলাদেশকে জয় উপহার দেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোসাদ্দেকের বেশ অভিজ্ঞতা থাকলেও আফিফের এটি ছিল দ্বিতীয় ম্যাচ।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে জিম্বাবুয়ে ও আফগানিস্তান এখন পর্যন্ত ৭ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে। এর মধ্যে সাতটিতেই জয় পেয়েছে আফগানরা। সুতরাং, জিম্বাবুয়ের জন্য আজ প্রথমবারের মতো আফগানদের হারানোর সুযোগ। কিন্তু রশীদ খানরা যে স্পিন আক্রমণ নিয়ে এই সফরে এসেছে তার সামনে মাসাকাদজারা কতটুকু লড়াই করতে পারে সেটিই দেখার বিষয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

আফগানিস্তান ইনিংস: ১৯৭/৫ (২০ ওভার)

(রহমানুল্লাহ গুরবাজ ৪৩, হযরতউল্লাহ জাজাই ১৩, নাজিব তারাকাই ১৪, আসগার আফগান ১৪, নাজিবউল্লাহ জাদরান ৬৯, মোহাম্মদ নবী ৩৮*; এনডিলোভু ১/৩৫, জারভিস ০/৫৩, সাতারা ২/৫৩, উইলিয়ামস ২/১৬, বার্ল ০/৪, মাদজিভা ০/৩৪)।