নির্বাচন শেষ করেই এরশাদের আরেক দফা ডিগবাজি!

প্রকাশিত: ৬:৩৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৪, ২০১৯ | আপডেট: ৬:৩৩:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৪, ২০১৯
বিরোধী দলের চেয়ারে বসতে পেরে আমি গর্বিত: এরশাদ। ফাইল ফটো

নির্বাচনের আগে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বলেছিলেন, জাতীয় পার্টি মহাজোটের হয়ে নির্বাচন করবে। সরকারেও থাকবে। কোনভাবেই বিরোধী দলে যাবে না। কিন্তু নির্বাচনের পর সরকার গঠনের আগ মুহূর্তে ভোল পাল্টিয়ে এখন তিনি একাদশ সংসদে জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল হিসেবে দেখতে চান। একাদশ সংসদে নিজেই বিরোধী দলের নেতা ও সংসদীয় দলের নেতা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

বর্তমানে তার স্ত্রী বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে শুধু বিরোধী দলের নেতা নয়, জাপার সংসদীয় দলের প্রধানও হতে চান সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। সম্মানজনক এই পদটিও বর্তমানে তার স্ত্রীর দখলে।

জাতীয় পার্টি বিরোধী দল, তিনিই বিরোধী দলের নেতা ও সংসদীয় দলের নেতা- শুক্রবার এমন সিদ্ধান্তই নেন এইচ এম এরশাদ। ছোটভাই জিএম কাদেরকে তিনি একাদশ সংসদে সংসদীয় দলের উপনেতা হিসেবে দেখতে চান এরশাদ। এজন্য সংসদের স্পিকারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। এরশাদ একাদশ সংসদ নির্বাচনে সাংসদ নির্বাচিত হলেও অসুস্থতার জন্য এখনো শপথ গ্রহণ করেননি।

সিদ্ধান্তের বিষয়টি দলের নেতাকর্মীদের অবগতির জন্য এরশাদের স্বাক্ষরে নোটিশ আকারে দলের দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে সংসদের স্পিকারের কাছেও চিঠি পাঠানো হচ্ছে বলে জানা গেছে।

নোটিশে এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে পার্টির সর্বস্তরের নেতাকর্মী সমর্থক এবং দেশবাসীর উদ্দেশ্যে আমি এই মর্মে জানাচ্ছি যে, একাদশ জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির প্রধান বিরোধী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে। পদাধিকার বলে জাতীয় পার্টির পার্লামেন্টারী দলের সভাপতি হিসেবে আমি প্রধান বিরোধী দলের নেতা এবং পার্টির কো চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের উপনেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। জাতীয় পার্টির কোনো সংসদ সদস্য মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভূক্ত হবেন না। সংসদের স্পিকারকে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যও অনুরোধ করেন এরশাদ।