নৈশভোজে কাদের সিদ্দিকীর বাসায় ঐক্যফ্রন্ট নেতারা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:৫০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮ | আপডেট: ৯:৫০:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকীর বাসায় নৈশভোজে অংশ নিতে গেছেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন।

আজ বুধবার রাতে তারা রাজধানীর মোহাম্মদপুরে কাদের সিদ্দিকীর বাসায় যান।

জানা গেছে, চলমান রাজনৈতিক ইস্যুতে গণফোরাম ও জেএসডির নেতারা কাদের সিদ্দিকীর সঙ্গে আলোচনা করেন। তবে আলোচনার এজেন্ডা সম্পর্কে কোনো দলের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে কিছু জানানো হয়নি।

গত ২৫ অক্টোবর রাতে কামাল হোসেনের বেইলি রোডের বাসায় গিয়ে তাকে দাওয়াত দিয়ে আসেন বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। সেদিন তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যুদ্ধ করেছি, দেশ স্বাধীন করেছি। ড. কামাল হোসেন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সংবিধান রচনা করেছেন। এখন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট হয়েছে। আমরা এখন একসঙ্গে কাজ করতে চাই।

এদিকে, কাদের সিদ্দিকীর বাসায় মঙ্গলবার রাতে বৈঠক করতে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দেড় ঘণ্টার বৈঠকে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের বিষয়বস্তু তুলে ধরেন বিএনপি মহাসচিব। এ সময় তিনি জাতীয় স্বার্থে কাদের সিদ্দিকীর অবদান ও ভূমিকার প্রশংসা করেন এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিতে অনুরোধ জানান।

বৈঠক শেষে এ বিষয়ে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বীরপ্রতীক জানান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগদানের বিষয়ে আগামী দুই-একদিনের মধ্যে তাদের সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এদিকে হঠাৎ কাদের সিদ্দিকীর বাসায় ড. কামাল হোসেনের দাওয়াত নিয়ে বেশ আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে। তবে এ বিষয়ে কেউ কোনো কিছু বলতে চাননি। তবে রাজনৈতিক মহলে শোরগোল চলছে, কাদের সিদ্দিকীও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিতে পারেন।

এ বিষয়ে বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে কাদের সিদ্দিকী জানান, ৩ নভেম্বর তার রাজনৈতিক অবস্থান সর্ম্পকে পরিষ্কার করবেন।

 

তিনি জানান, আগামী ৩ ডিসেম্বর জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে একটি আলোচনা সভার আয়োজন করেছেন। এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশিষ্ট আইনজীবী ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। আলোচনা সভায় সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে। এই সভা থেকে তিনি তার রাজনৈতিক অবস্থানও পরিষ্কার করবেন।