ন্যান্সির ৮ বছরের সংসারের ইতি, সেপ্টেম্বরে তৃতীয় বিয়ে

টিবিটি টিবিটি

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৮, ২০২১ | আপডেট: ৬:৪৫:অপরাহ্ণ, জুলাই ২৮, ২০২১

তৃতীয় বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত কণ্ঠশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি। তবে পাত্র কে, সেটি এখনই জানাতে চান না তিনি।

আজ বুধবার বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে এ খবর এনটিভি অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন এ কণ্ঠশিল্পী। তিনি বলেন, ‘আগামী সেপ্টেম্বরে আমি বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছি, তবে পাত্র কে, সেটা এখনই জানাতে চাই না।’

বুধবার দুপুরে নিজের ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন গায়িকা। সেখানে তিনি লিখেন, সংসার জীবনে বিচ্ছেদ মানেই মানসিক নিপীড়ন, পরিবারের দূর সম্পর্কের আত্মীয় দের টিপ্পনি, সমাজের নোংরা কথা… ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্ত নিজের ওপর ভরসা থাকলে এই কঠিন সময় টাও সহজ হয়ে যায়। আমার বেলায় তাই হয়েছে। দুটো মানুষ একে অপরের বিরক্তির কারণ না হয়ে বরং সম্মানের সাথে আলাদা হয়ে যাওয়াই শ্রেয়। নতুন পথে যাত্রা শুরু করলাম। তাই বলি, বিচ্ছেদ কখনো মধুর ও হয়।

অতীত ভুলে নতুন জীবন সাজাতে চান ন্যান্সি। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে তিনি জানান, আগামী সেপ্টেম্বরে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন তিনি। সেই মাপেই চলছে সার্বিক প্রস্তুতি। তবে, পাত্র কে তা এখনই জানাতে চান না।

ন্যান্সি বলেন, ‘সবাই আমার বিচ্ছেদ নিয়ে পড়ে আছেন। কিন্তু আমি তো সামনে তাকাতে চাই। বিয়েটাও তো মধুর কিছু। আশা করছি সেপ্টেম্বরেই বিয়ের পিঁড়িতে বসছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার এর আগে বিয়ে হয়েছে কিন্তু মেহদি দেওয়া হয়নি। যেহেতু এবার দানে দানে তিন দান, তাই বিয়ের সব আয়োজন রাখব কিনা ভাবছি। মেহেদি, প্রি ও পোস্ট ওয়েডিং- সব কিছু। আমি জীবন নিয়ে নতুন করে ভাবতে চাই। পেছন ফিরে তাকাতে চাই না।’

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ৪ মার্চ নাজিমুজ্জামান জায়েদকে বিয়ে করেন ন্যান্সি। জায়েদ এবং ন্যান্সির সংসারে নায়লা নামে এক কন্যা সন্তান রয়েছে। জায়েদ ময়মনসিংহ পৌরসভায় চাকরি করছেন এবং ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত। এটি ছিলো ন্যান্সির দ্বিতীয় বিয়ে।

এর আগে ২০০৬ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন ব্যবসায়ী আবু সাঈদ সৌরভকে। আনুষ্ঠানিকভাবে ২০১২ সালের ২৪ মে ছয় বছরের সংসারজীবনের ইতি টানেন ন্যান্সি। সেই সংসারে রোদেলা নামে তাদের এক মেয়ে আছে।

ন্যান্সির সঙ্গীত জীবন শুরু হয় ২০০৬ সালে হৃদয়ের কথা চলচ্চিত্রের গান গেয়ে। ২০০৯ সালে তার প্রথম অ্যালবাম ভালোবাসা অধরা প্রকাশিত হয়। ২০১১ সালে প্রজাপতি চলচ্চিত্রের গানে কণ্ঠ দিয়ে তিনি প্রথমবারের মত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন।