পরিবহন শ্রমিকদের নৈরাজ্য থেকে রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সও রক্ষা পাচ্ছে না

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২:৫৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০১৮ | আপডেট: ২:৫৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০১৮
সংগৃহীত

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে- ব্যক্তিগত গাড়ি, অটোরিকশা ও রিকশা থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে হয়রানি করা হয়েছে। এ সময় প্রাইভেটকারচালকদের মুখে কালো রঙ, পোড়া মবিল ও আলকাতরা মেখে দিচ্ছেন শ্রমিকরা।

সড়ক পরিবহন আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধনসহ আট দফা দাবিতে ডাকা ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘটে যাত্রী ও চালকদের হেনস্তা করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। তাদের নৈরাজ্য থেকে রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সও নিস্তার পাচ্ছে না।

লাঞ্ছিত করা হচ্ছে সাধারণ যাত্রীদেরও। জনভোগান্তির ছবি তুলতে গিয়ে হেনস্তার শিকার হয়েছেন ফটোসাংবাদিকরা। রোববার সকাল থেকে এ ধর্মঘটে গণপরিবহন বন্ধ রাখার কথা থাকলেও যাত্রাবাড়ীতে অটোরিকশা এবং ব্যক্তিগত গাড়ি চলতেও বাধা দেয়া হয়।

গণমাধ্যমকেও তারা কাজ করতে দিচ্ছেন না। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, কাজলা, চিটাগাং রোড ও শনিরআখড়ায় এ নৈরাজ্য বেশি চলছে। যাত্রাবাড়ী এলাকায় বেশ কয়েকজন গাড়িচালকও হেনস্তার মুখোমুখি হওয়ার কথা বলেছেন।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা গতকালও বলেছি- কোথাও যেন যানবাহন চলাচলে বাধা দেয়া না হয়। কিন্তু আজ সকালে কয়েকটি জায়গা থেকে এ ধরনের ঘটনার খবর পেয়েছি। মিরপুর ও যাত্রাবাড়ী এলাকায় আমি লোক পাঠিয়েছি- কারা এসব করছে তা দেখার জন্য।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যাত্রাবাড়ী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ বলেন, যাত্রীদের পোড়া মবিল লাগানো হয়নি। প্রাইভাটেকারেও না। তবে চালকদের মুখে পোড়া মবিল মেখে দেয়া হয়েছে।
এ পরিবহন শ্রমিক নেতা বলেন, আমাদের আন্দোলন বাধাগ্রস্ত করতে তৃতীয় কোনো পক্ষ এখানে ঢুকে পড়তে পারে। তারা অপকর্ম করে আমাদের ওপর দায় চাপানোর জন্য এসব করতে পারে। আমাদের শ্রমিকরা এসব করছে না।