পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিপরীক্ষা একইদিনে বিপাকে লাখো শিক্ষার্থী

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:৩৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩০, ২০১৮ | আপডেট: ৫:৩৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩০, ২০১৮

বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে ভর্তিপরীক্ষার মৌসুম। তাই দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে ভর্তিপরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুরা। ইতোমধ্যে পরীক্ষা হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যাল, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। পরীক্ষা চলছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যাল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে।

আগামী ৯ এবং ১০ নভেস্বর একই সাথে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিপরীক্ষা। ফলে বিপাকে পড়েছেন ভর্তিচ্ছু লাখ লাখ শিক্ষার্থী। এসব শিক্ষার্থী পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিপরীক্ষায় অংশ নিতে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করেছেন। এখন একই দিনে ভর্তিপরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ায় যেকোনো একটি প্রতিষ্ঠানের ভর্তিপরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। ফলে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে পারবেন না। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা কাজ করছে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে।

জানা যায়, আগামী মাসের ৯ এবং ১০ তারিখে ভর্তিপরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ডেন্টাল কলেজ, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ঢাকার ৭ কলেজের।

এই প্রতিষ্ঠানগুলোতে ভর্তির জন্য আবেদন করেছেন কয়েক লাখ পরীক্ষার্থী। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ইউনিটগুলোর পরীক্ষাগুলো নিয়েই বেশি সমস্যা দেখা দিচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘এ’ এবং ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষা হবে ৯ নভেম্বর। আর ‘সি’ ইউনিটের হবে ১০ নভেম্বর। এরমধ্যে ‘এ’ ইউনিট বিজ্ঞান অনুষদের জন্য। একই দিন বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ইউনিটের পরীক্ষা রয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের। এ বিশ্ববিদ্যালয়টির ‘সি’ এবং ‘এইচ’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এদিন। যা বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য।

আবার বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়, ডেন্টাল কলেজ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ৭ কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের পরীক্ষাও এদিন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এছাড়া পরের দিন অর্থাৎ ১০ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘এ’, ‘বি’ এবং ‘আই’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। একই দিন পরীক্ষা রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির। এ দুটি বিশ্ববিদ্যালয় বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য নির্দিষ্ট। জানা যায়, চলতি বছরের ১২ জুলাই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় ভর্তি পরীক্ষার এই তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ৩০ জন উপাচার্য। এদিকে একই দিনে একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা হওয়ায় চিন্তিত এবং উভয় সংকটে পড়েছেন পরীক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, এমন হলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার স্বপ্ন কোনোদিন পূরণ হবে না। এতে পরীক্ষার্থীদের মনোবল নষ্ট হয়। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান অনুষদের পরীক্ষায় অংশ নিতে আবেদন করেছেন তানিয়া রহমান নামের মানিকগঞ্জের এক শিক্ষার্থী।

পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ৭ কলেজেও আবেদন করেছেন তিনি। কোন বিশ্ববিদ্যালয় বাদ দিয়ে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষায় তানিয়া অংশ নেবেন তা ঠিক করতে পারেননি। এখন সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন তিনি। তানিয়া আহমেদ আমার সংবাদকে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে সমন্বিত পরীক্ষার কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত তার দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ চোখে পড়লো না। যদি তা হতো তবে আমাকে আজ এমন দোটানায় পড়তে হতো না। কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেবো তা এখনো ঠিক করিনি।’

তানিয়ার বাবা আব্দুর রশিদ বলেন, ‘আবেদন করার সময় বেশকিছু টাকা চলে যায়। আবার আবেদন করার পর পরীক্ষা দিতে না পারাও আর এক ধরনের কষ্ট। আমি কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করবো, আপনারা পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তনের বিষয়টি একটু ভেবে দেখুন।’ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটিতে পরীক্ষার জন্য আবেদন করেছেন শাহাদাৎ হোসাইন নামের এক পরীক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘আমি এখন চোখে অন্ধকার দেখছি। কোনটা রেখে কোনটার পরীক্ষা দেবো। আমার মতো হাজারো শিক্ষার্থী এখন সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে।’

রহমত উল্লাহ নামের এক পরীক্ষার্থী বলেন, ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজে আবেদন করেছি। এখন কোথায় পরীক্ষা দেবো বুঝতে পারছি না।’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ৭ কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করা নাসিমা আক্তারের বাবা আব্দুস সালাম বলেন, ‘এমনতো নয় যে ,পরীক্ষা দিলেই ভর্তির সুযোগ মেলে। একটায় না হলে অন্যটায় হবে এই আশায় একাধিক জায়গা থেকে ফরম তুলতে বলেছিলাম। এখন শুনছি একই দিনে দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা। বুঝতে পারছি না কোথায় পরীক্ষা দিতে বলবো।’তবে বেশি বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার কারণে এমন ওভারলেপ হচ্ছে বলে মনে করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যায়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। তিনি আমার সংবাদকে বলেন, ‘ এখন প্রায় ৪৮টা বিশ্ববিদ্যালয়।

তাই অনিচ্ছা সত্ত্বেও ওভারলেপ হচ্ছে। আমাদের অনেকগুলো ইউনিট। আর পরীক্ষার যে তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে, আপাতত তা আর পরিবর্তন করা সম্ভব নয়।’তিনি আরও বলেন, আমাদের এখানে যারা আবেদন করেছেন তারা অপেক্ষাকৃত কম সিজিপিএধারী। তাই তারা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ডেন্টাল বা টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করেনি। তাই এখানে যারা পরীক্ষা দেবে তাদের জন্য খুব বেশি সমস্যা নয় বলে মনে করেন তিনি।

এ সমস্যা সমাধানের জন্য কী করা যেতে পারে এমন প্রশ্নে জবাবে এই উপাচার্য বলেন, ‘সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হলে এ সমস্যা আর থাকতো না। তখন নির্বিঘ্নে ভর্তিচ্ছুরা পরীক্ষা দিতে পারতো।’ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার (চলতি দায়িত্ব) ড. মো. আবু তাহের আমার সংবাদকে বলেন, আমরা যখন ভর্তিপরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করি তখন একই দিনে শুধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির পরীক্ষা ছিলো। ওটা যেহেতু বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় তাই কোনো সমস্যা হবে না বলে ভেবেছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, আমাদের ভর্তি কমিটির মিটিং হবে। তখন দেখি বিষয়টি তুলবো। সম্ভব হলে তারিখ পরিবর্তন করা হবে।’কবি নজরুল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আই কে সেলিম উল্লাহ খন্দকার বলেন, ‘আমাদের ৭ কলেজে বিজ্ঞানের অনেক শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়। একই দিনে পরীক্ষা হওয়ায় সমস্যা হবে। তবে আমরা পরীক্ষা সকালের পরিবর্তে বিকালে করেছি।’ সাত কলেজের পরীক্ষার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আখতারুজ্জামান আমার সংবাদকে বলেন, ওইদিন ৭ কলেজের একটি ইউনিটের পরীক্ষা রয়েছে। তবে অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা আছে কিনা তা জানা নাই।’