বিচারপতিদের মধ্যেও সমকামী আছে, তাই এই রায় : বিজেপি নেতা

প্রকাশিত: ৩:৫৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮ | আপডেট: ৩:৫৭:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮

‘সমকামিতা জন্মগত ত্রুটি। স্বাভাবিক যৌন আচরণের সঙ্গে একে সমান ভাবে দেখা যায় না’, ভারতের সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায়দানের অব্যবহিত পরেই মন্তব্য করলেন দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপি নেতা সুব্র্যমনিয়ম স্বামী।

২০১৮-র ৬ই সেপ্টেম্বরের সকালটা কোনোদিন ভুলবেন না তারা। বহু প্রতীক্ষিত ও কাঙ্খিত এই রায় যেন খুশির জোয়ার এনেছে ভারতের সমকামীদের মধ্যে। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আজ রায় দিয়েছে সংবিধানের ৩৭৭ ধারা অবৈধ।

কিন্তু এরপরই অন্য সুর শোনা গেল এই বিজেপি নেতার গলায়। সুব্র্যমনিয়ম স্বামী আরও বলেন, ‘সমকামিতা পিডোফেলিয়া, গে বার এবং এইচআইভি-র সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে’।

পাশাপাশি তিনি একটি বিতর্কিত মন্তব্যও করে বসেন। তিনি বলেন, ‘আমি এমন বেশ কিছু বিচারপতিকে চিনি যারা সমকামী’। যদিও তিনি মনে করেন, পুলিশের কোনো অধিকার নেই মানুষের শোয়ার ঘরে প্রবেশ করার।

‘সমকামিতা স্বাভাবিক বিষয় নয়। এসব আমেরিকানদের অভ্যেস। এর পেছনে তাদের প্রচুর টাকার খেলা রয়েছে। তারা সেখানে প্রকাশ্যে ‘গে বার’ খুলতে চায়। কিন্তু এর ফলে পিডোফিল এবং এইচআইভি-র সম্ভাবনা ব্যপক হারে বৃদ্ধি করে। এটি জাতীয় সুরক্ষার ক্ষেত্রে একটি বিপদ সংকেত’, সংবাদসংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাতকারে এমনটাই জানান সুব্র্যমনিয়ম স্বামী।

তিনি আরও বলেন, ‘সমকামিতা হিন্দুত্ব বিরোধী। এবং আমাদের সমস্ত শতাব্দীপ্রাচীন নিয়মের পরিপন্থী’।

১৫৮ বছর আগের ঔপনিবেশিক আইন ভেঙে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এই ঐতিহাসিক রায় দিয়েছে।