‘বিল বোর্ডে ছবি নয়, কর্মদক্ষতা দেখে মনোনয়ন দিবেন প্রধানমন্ত্রী’

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:২৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৭:২৬:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮
সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাভার বাজার বাসস্ট্যান্ডে সাভার পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও ঐক্য ফ্রন্টের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বিশাল এক গণ সংযোগে যোগ দেন সেখানে নিজের ছবি সংবলিত অসংখ্য বিলবোর্ড, ব্যানার ও ফেস্টুন দেখে মন্ত্রী অত্যন্ত লজ্জা পেয়েছেন উল্লেখ করে বলেছেন, সাভারে এতো বিলবোর্ড কেন? বিল বোর্ড দেখে প্রধানমন্ত্রী কাউকে মনোনয়ন দিবেন না, মনোনয়ন দিবেন যার যার গ্রহণযোগ্যতা ও কর্মদক্ষতা দেখে। মানুষের সাথে যারা আচার-আচরণ ভাল করবেন তাদেরকেই শেখ হাসিনা আগামীতে মনোনয়ন দিবেন।

বিল বোর্ডের পিছনে টাকা খরচ না করে সে টাকা গরিব-দুস্থ ও অসুস্থ মানুষকে দেওয়ার পরমর্শ দেন মন্ত্রী । বিলবোর্ড ও ব্যানার- ফেস্টুনে ছবি দেখিয়ে খুশি করা যাবে না উল্লেখ করে তিনি তাঁর নিজের ছবি বা অন্য নেতাদের ছবি ব্যবহার না করে শুধু বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবির পাশাপাশি সজিব ওয়াজেদ জয়ের ছবি ব্যবহার করা যেতে পারে বলে পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, যারা জনগণের মাঝে বাঁচতে চান, মৃত্যুর পরও বাঁচতে চান তারা কর্মের মাধ্যমে বাঁচতে পারবেন, ছবি দিয়ে নয়।

মানুষের সমাগম দেখে মন্ত্রী বলেন, দিয়েছিলাম পথসভা, হয়ে গেল বিশাল জনসভা। নৌকা ও শেখ হাসিনার পক্ষে এটা গণ জোয়ার। শুধু সাভারে নয়, সারা বাংলায় এই গণ জোয়ারের সৃষ্টি হয়েছে। অথচ খালেদা জিয়ার সময়ে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ১৬ ঘণ্টা লোড শেডিং হতো। এখন লোড শেডিং নেই। এখন ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ১৫ কোটি মানুষের হাতে রয়েছে মোবাইল ফোন। আজকে ১০ কোটি মানুষের ঘরে ইন্টারনেট সুবিধা। বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, মুক্তিযোদ্ধ ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা সবই দিয়েছেন শেখ হাসিনা। আজকে বাচ্চার উপবৃত্তির টাকা মহিলাদের কাছে যায় মোবাইল ফোনের মাধ্যমে, বছরের প্রথম দিন বাচ্চারা বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক পায়।

বিএনপি’র প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বি.এন.পি. এখন বাংলাদেশ নালিশ পার্টি। তাদের সব বিশ্বাসযোগ্যতা, গ্রহণযোগ্যতা এখন সংকুচিত হয়ে পড়েছে। নৃশংস ২১ আগস্ট হত্যাকান্ডের মাস্টার মাইন্ড হচ্ছে বিএনপি। তারা ২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। আইভি রহমানসহ ২২ জনকে হত্যা করেছে এই দল। এই দল এখন খুনি দল। ক্যানাডার আদালত এই দলকে বলেছে- সন্ত্রাসী দল। তাই এই দলের প্রতি দেশের মানুষের আর কোনো আস্থা নেই।

খালেদা জিয়া কারাগারে। বিএনপির এখন চেয়ারপর্সনের দায়িত্বে কে প্রশ্ন তুলে মন্ত্রী বলেন, পলাতক আসামি, ২১ আগস্টের হত্যাকান্ডে জাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত আসামি তারেক জিয়া এখন বিএনপি’র চেয়াম্যান। এই ধরণের লোককে দেশের মানুষ পছন্দ করে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ধানের শিষ এখন পেটের বিষ। সাপের বিষ।

গত ১০ বছরে ২০টি ঈদ হয়েছে কিন্তু বিএনপি কোনো ঈদের পর আন্দোলন করতে পারেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, মরা গাঙ্গে কখনো জোয়ার আসে না।

বিএনপিকে কেন মানুষ ভোট দিবে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, তাদের কোনো রাস্তা-ঘাট, বিদ্যুৎ, স্কুল-কলেজ কোথাও নেই। তাদের কোথাও কোন উন্নয়ন নেই। আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি একটি ভুয়া খবর দিলো- জাতিসংঘের মহাসচিব নাকি বিএনপির মহাসচিবকে চিঠি দিয়ে দাওয়াত করেছে। বিএনপির মহাসচিব স্যুট-কোট পরে জাতিসংঘে গেলে সেখানে তখন জাতিসংঘের মহাসচিব ছিলেন না। তিনি ছিলেন তখন ঘানায়। তখন ফখরুল সাহেবের সাথে তৃতীয় শ্রেণির একজন কর্মকর্তা দেখা করে বলেন, ‘দেখা যাবে’। তারা (জাতিসংঘ) জানে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল। বাংলাদেশের জাতীয় উৎপাদন ১৭৫১ ডলার, জিডিপি ৭.৮৬, বাংলাদেশের রপ্তানি ৩৭ মিলিন ডলার, বাংলাদেশ আজ আর্থ-সামাজিক যেকোন সূচকে এগিয়ে যাচ্ছে। কোকো কোনো সূচকে পাকিস্তান-ভারতের চেয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আজ পারমানবিক ক্লাবের সদস্য। শেখ হাসিনা আজকে মহাকাশ জয় করেছে। আগে দেশের জনগণ ও ছেলে-মেয়েরা বিদেশি খেলা উপভোগ করতো বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া করে, এখন আমরা নিজেদের স্যাটেলাইটে ক্রিকেট ও ফুটবল খেলা দেখি।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি দেশে অসুস্থ ধারার রাজনীতি করার জন্য অসুস্থ মানুষের সাথে ঐক্যফ্রন্ট করেছে। এই ঐক্য ফ্রন্টের কোন ভিত্তি নেই। দেশের মানুষ আগামী নির্বাচনে আবারও নৌকা মার্কাকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনবে। খালেদা জিয়াকে মাইনাস করতে বিএনপি কামাল হোসেনের সাথে ঐক্য করেছে। মন্ত্রী আরও বলেন, আওয়ামী লীগে কোনো বিভেদ নেই। সবাই এক সাথে নির্বাচন উপলক্ষে কাজ করবে। আগামী নির্বাচন উপলক্ষে বিএনপি দেশে কোনো অবৈধ আন্দোলন করলে কঠোর হাতে দমন করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

এ গণ সংযোগ অনুষ্ঠানে সাভার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আব্দুল গণির সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান, ঢাকা-২০ আসনের সংসদ সদস্য এম এ মালেক, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী, সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজিব প্রমুখ।

পরে আশুলিয়ার ডেন্ডাবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী পর্ষদের পক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত নির্বাচনী গণসংযোগের অপর এক পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিয়ে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সংসদীয় আসন গুলোতে মনোয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীদের হুশিয়ারী উচ্চারণ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, নমিনেশন চাওয়াটা সবার গণতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু নমিনেশন না পেয়ে যদি কোন প্রার্থী বিদ্রোহ করে তাহলে তার খবর আছে! ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা ও পৌর সভা নির্বাচনে যারা বিদ্রোহ করেছেন তাদের ক্ষমা করা হয়েছে। কিন্তু এইবার বিদ্রোহ করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাউকে রেহাই দিবেন না। কেননা সব শয়তান, সন্ত্রাসী, খুনিরা এক হয়ে ঐক্যজোট করেছে। তাই সকলকে আওয়ামী লীগের হয়ে একজোট থাকতে হবে।

এ সভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিসেস হাসিনা দৌলার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুর রহমান শামিম, ঢাকা জেলা পরিষদ প্রশাসক মাহবুবুর রহমান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনিজর আহমেদসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।