বড়লেখায় পুকুর থেকে আ’লীগ নেতার লাশ উদ্ধার, দাবি পরিকল্পিতভাবে হত্যা

আব্দুর রব আব্দুর রব

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৫:২৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯ | আপডেট: ৫:২৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

বড়লেখা থানা পুলিশ মঙ্গলবার সকালে আব্দুল মতিন (৬০) নামে এক স্থানীয় আ’লীগ নেতার লাশ উদ্ধার করেছে। তিনি দক্ষিণভাগ দ. ইউপির ৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক।

দুপুরে পুলিশ তার লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহতের ছেলে রাজু আহমদের দাবী পরিকল্পিতভাবে তার বাবাকে হত্যা করে পার্শবর্তী গ্রামের পুকুরে লাশ ফেলে রাখা হয়।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার রতুলি বাজার সংলগ্ন গাংকুল গ্রামের বাসিন্দা স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মতিন রোববার সন্ধ্যায় বাজার খরচ করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। রাত এগারোটা পর্যন্ত ছেলে রাজু আহমদের সাথে ফোন যোগাযোগ ছিল। কিন্তু এরপর থেকে তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায় এবং রাতে তিনি বাড়ি ফেরেননি।

পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খোজাখুজি করেন। সকাল দশটার দিকে পার্শবর্তী দক্ষিণ হরিপুর গ্রামের রহিম উদ্দিনের পুকুরে গোগল করতে গিয়ে প্রতিবেশি আব্দুল কাদিরের পায়ে অস্বাভাবিক কিছু লাগে। মানুষের লাশের মতো বুঝতে পেরে তিনি পুকুরপারের কয়েকজন বাসিন্দাকে ডেকে নিয়ে তা উপরে তুলেন। উপস্থিত সকলেই আব্দুল মতিনের লাশ সনাক্ত করেন। খবর পেয়ে নিহতের স্বজন ও পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

নিহত আব্দুল মতিনের ছেলে রাজু আহমদ অভিযোগ করেন ডুবে মারা যাওয়ার মতো গভীর পানি এ পুকুরে ছিল না। দুর্ঘটনাবশত পুকুরে পড়ে যাওয়ারও কোন আলামত মিলেনি। ঘটনাস্থলের অনেক দুরে তার বাবার ব্যবহৃত একটি জুতা ও গ্যাস লাইট পাওয়া গেলেও মোবাইল ফোনটি মিলেনি। তার দাবী পরিকল্পিতভাবে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলা দেয়া হয়েছে।

থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক মঙ্গলবার দুপুরে জানান, মারা যাওয়া ব্যক্তির পরিবারের মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। লাশের সুরতহাল তৈরী করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়া গেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।