বড় সুখবর আসছে প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০১৮ | আপডেট: ৬:০৪:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০১৮

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে চূড়ান্ত পদোন্নতি পেতে যাচ্ছেন চলতি দায়িত্ব পাওয়া ১৫ হাজার জন। ইতোমধ্যে শিক্ষক নিয়োগ সংশোধনী বিধিমালা চূড়ান্ত পর্যায়ে। আগামী মাসের মধ্যে এই চূড়ান্ত পদোন্নতি দেয়া হবে বলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদটি ১২তম গ্রেডে দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা হওয়ার পর শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী নিয়োগ-পদোন্নতি বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) আওতাভুক্ত হয়। সারাদেশে সঙ্কট নিরসনে গত ২৩ মে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের শূন্যস্থানে জ্যেষ্ঠ সহকারী শিক্ষকদের অস্থায়ী পদোন্নতি দেয়ার ঘোষণা দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান। এরপর থেকে দেশের ৬৪টি জেলায় প্রধান শিক্ষকশূন্য স্কুলগুলোতে পর্যায়ক্রমে ১৫ হাজার জনকে প্রধান শিক্ষক হিসেবে অস্থায়ীভাবে পদায়ন করা হয়।

সংশোধিত নিয়োগ বিধিমালায় দেখা গেছে, সরাসরি প্রধান শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতকোত্তর করা হয়েছে। পদটি দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত হওয়ায় পিএসসি নীতিমালার সঙ্গে সংগতি রেখে বয়স নির্ধারণ করা হয়েছে ২১ থেকে ৩০ বছর। তবে আগের মতো সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে ৬৫ শতাংশ পদোন্নতির মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক হওয়ার বিধানও রাখা হয়েছে। বাকি ৩৫ শতাংশ পদে সরাসরি নিয়োগ দেওয়া হবে। নিয়োগ-পদোন্নতির পুরো দায়িত্ব পিএসসির হাতে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এএফএম মনজুর কাদির এ বিষয়ে বলেন, প্রধান শিক্ষক পদটি পিএসসির অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় এ পদে নিয়োগ-পদোন্নতি-সংক্রান্ত জটিলতা সৃষ্টি হয়। এ কারণে চলতি দায়িত্বে সারাদেশে ১৫ হাজার প্রধান শিক্ষকের পদায়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা চূড়ান্ত পর্যায়ে। সচিব কমিটির অনুমোদনের পর এটি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। সেখান থেকে ভাষাগত কিছু পরিবর্তনের পর তা পিএসসিতে পাঠানো হয়েছে। পিএসসি থেকে আসার পর বিধিমালাটি রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের জন্য পাঠানো হবে।’

মনজুর কাদির আরও বলেন, ‘স্থায়ী পদোন্নতির জন্য ১৫ হাজার প্রধান শিক্ষকের তালিকা পিএসসি সুপারিশের জন্য পাঠানো হবে। সুপারিশ পেলে পরিপত্র জারির মাধ্যমে চলতি দায়িত্বে পদায়ন হওয়া শিক্ষকদের চূড়ান্ত পদোন্নতি হবে।