ম্যানেজিং কমিটির অত্যাচারে অতিষ্ঠ শিক্ষকরা

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৮:৩৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৩৭:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৮

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধিকাংশ অধ্যক্ষ-প্রধান শিক্ষকসহ সাধারণ শিক্ষকরা পরিচালনা কমিটির একশ্রেণীর সভাপতি-সদস্যের অত্যাচার-নির্যাতন, মানসিক-পীড়নের শিকার হচ্ছেন। বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানে আছে মোটা অংকের সংরক্ষিত তহবিল। সেই তহবিলসহ দৈনন্দিন আয়ের ওপর ভাগ বসাতে চান। এছাড়া শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ বাণিজ্য, ভবন নির্মাণ, সংস্কার, মিটিং বাণিজ্যসহ নানা প্রক্রিয়ায় প্রতিষ্ঠানগুলোর অর্থ লুটপাটের অভিযোগ আছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবাদী শিক্ষকদের চাকরিচ্যুতও করা হচ্ছে। কোনো কারণে কোথাও কাউকে চাকরিচ্যুত করতে না পারলে মানসিক নির্যাতন করা হচ্ছে। ফলে সাধারণ শিক্ষকদের জীবন অনেকটাই অতিষ্ঠ। দেশের শিক্ষকরা পরিচালনা কমিটির অত্যাচার-নির্যাতন ও লুটপাটমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কামনা করেন।

ইউনেস্কো ২০১৬ সালে ‘স্কুলস লিডারশিপ’ নামে একটি প্রস্তাবনা তুলে ধরেছে। তাতে বলেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার সভাপতির পদে আসীন হবেন অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষকরা। বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেখি, বহিরাগতদের বেশির ভাগ লুটপাট আর অপকর্মে ব্যস্ত। ইউনেস্কোর প্রস্তাব অনুযায়ী পরিচালনা কমিটির বিধান তৈরি করে প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব অধ্যক্ষ-প্রধান শিক্ষকদের দিতে হবে।

দেশে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয় পরিচালনা কমিটি দ্বারা। এসব পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা বিধি ও নীতিমালা দ্বারা।

তবে যেসব ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান পরিচালনার দায়িত্বে আসছেন তাদের বেশির ভাগের শিক্ষাগত যোগ্যতা, নৈতিক মান, সামাজিক মর্যাদা ইত্যাদি প্রশ্নবিদ্ধ। অনেকেরই টার্গেট থাকে স্কুল-কলেজ থেকে অর্থ লুটপাট। তারা দলীয় রঙ মেখে শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করে থাকে। এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতেই চাকরি জাতীয়করণ দাবি করছি।

দুষ্ট সভাপতি ও সদস্যদের লুটপাটে প্রধান সহায়কের ভূমিকা পালন করেন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক প্রতিনিধিরা। কোথাও অধ্যক্ষ-প্রধান শিক্ষকরাও । মিলেমিশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তহবিল লুটপাট করেন। তবে নিবেদিতপ্রাণ সভাপতি এবং সদস্যও আছেন। অসৎ শিক্ষক-অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষকদের মোকাবেলা করে প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে নিচ্ছেন তারা। কিন্তু এই সংখ্যা খুবই নগণ্য বলে জানা গেছে। আমার বিশ্বাস শিক্ষাবান্ধব সরকার ম্যানেজিং কমিটি নামক লুটেরাজ থেকে শিক্ষকদের রক্ষা করবেন এবং প্রতিষ্ঠানে সুষ্ঠ ও স্বাভাবিক শিক্ষার পরিবেশ ফিরে আনবেন তাহলে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পুরণ হবে।

লেখক: শিক্ষক