যে কারণে বাদ পড়লেন নাহিদ ও শাজাহান

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৭:১৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০১৯ | আপডেট: ৭:১৬:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০১৯
ফাইল ছবি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। এই মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

আজ রোববার বিকাল সাড়ে ৪টায় নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

বিভিন্ন কারণে আলোচিত-সমালোচিত হওয়ায় নতুন মন্ত্রিসভায় ঠাঁই হয়নি তাদের।

নৌমন্ত্রী হিসেবে কারও জায়গা না হলেও এবার শাজাহান খানকে বাদ দিয়ে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীকে।

এছাড়া শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে বাদ দিয়ে তার জায়গা দখল করেছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এছাড়া এ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

নুরুল ইসলাম নাহিদ ও শাজাহান খানের মন্ত্রিত্ব না পাওয়ার বিষয়ে অনেকেই বিভিন্ন কারণ তুলে ধরেছেন।

২০০৯ সাল থেকে টানা দুই মেয়াদে শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন নুরুল ইসলাম নাহিদ।

প্রশ্নফাঁস আর কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সিলেবাস বৃদ্ধি, জেএসসি-পিইসি পরীক্ষা চালু, পাঠ্যপুস্তকে ভুলসহ নানা কারণে ব্যাপক সমালোচিত শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তার মন্ত্রিত্ব না পাওয়ার অন্যতম কারণ বলে মনে করছেন অনেকেই।

এছাড়া ২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর এক অনুষ্ঠানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শকদের প্রতিবেদন দেয়ার ক্ষেত্রে ‘সহনশীল মাত্রা’য় ঘুষ খাওয়ার বক্তব্য দিয়ে সমালোচিত হন নুরুল ইসলাম নাহিদ।

এদিকে শাজাহান খান সবচেয়ে বেশি বিতর্কিত হন রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ওপর বাসচাপা নিয়ে মন্তব্যের কারণে।

এছাড়া ২০১১ সালের ১৪ আগস্ট মানিকগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনায় আহতদের দেখতে গিয়ে শাহজাহান খান বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার জন্য চালকেরা দায়ী নন। অবৈধভাবে লাইসেন্স নেয়া অদক্ষ চালকদের কারণে একের পর এক সড়ক দুর্ঘটনায় বহু হতাহতের বিষয় নিয়ে যখন দেশবাসী ক্ষুব্ধ, তখন মন্ত্রী এ মন্তব্য করে বসেন।

গত বছরের ১ মে শাজাহান খান বলেন, ‘উপমহাদেশের মধ্যে বাংলাদেশে দুর্ঘটনা কম ঘটে। বিভিন্ন স্থানে রাস্তার বাঁকগুলো সরলীকরণ, ফুটওভার ব্রিজ, পাতালপথ নির্মাণের ফলে দুর্ঘটনা অনেকটা কমে এসেছে বলেও বিতর্কিত মন্তব্য করেন তিনি।

এছাড়াও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বিতর্কিত মন্তব্য করেন তিনি।