লোক দেখানো সংলাপ কি ধাপ্পাবাজি? প্রশ্ন মান্নার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬:৫২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮ | আপডেট: ৬:৫২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮
মাহমুদুর রহমান মান্না। ফাইল ছবি

গণভবনে বৃহস্পতিবার ডাকা সংলাপের ফলাফল নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী কি আমাদের সঙ্গে সংলাপের জন্যে ডেকেছেন? নাকি আমাদের ডেকে নিয়ে গিয়ে ধাপ্পা দিবেন, আলোচনার নামে তিনি লোক দেখানো সংলাপের আয়োজন করেছেন কি না সেটাও এখন ভাবার বিষয়।’

বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এই শঙ্কা প্রকাশ করেন।

মান্না বলেন, ঐক্যফ্রন্ট চায় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো আর কোনো প্রহসনের নির্বাচন যেন এদেশে না হয়। সংবিধান সংশোধন করে হলেও আমরা গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন চাই।

তিনি বলেন, সংলাপের আগে বেড়াজাল দিলে সংলাপ সফল হবে না। ৭ দফা দাবি নিয়েই আলোাচনা হবে। আগেই সংবিধানের দোহাই দিলে সংলাপ সফল হবে না, জনগণের স্বার্থে সংবিধান পরিবর্তন করা যাবে।

এই আলোচনা সভায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র আ স ম আব্দুর রব বলেন, জাতীয় সংলাপ সফল করতে হলে খোলামেলা আলোচনা করতে হবে। কোনরকম পূর্বশর্ত দিয়ে সংলাপ হবে না।

আলোচনা সভায় ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, যতদিন ৭ দফা দাবি আদায় হবে না, ততদিন এই আন্দোলন চলবে আর এই আন্দোলনে নেতৃত্ব দেবেন ড. কামাল। সংলাপ আহবান করার পরও বিএনপিকে ধ্বংস করার কাজ করে যাচ্ছে। বেগম জিয়ার দুটি রায় হয়েছে, আমরা প্রত্যাখ্যান করছি। এই সংলাপ কতটুকু আন্তরিক এ নিয়ে সংশয় রয়েছে। আশা করি প্রধানমন্ত্রী সংলাপ সফল করে একটি সুষ্ঠু সমাধানের পথ বের করবেন।

জেএসডির আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খন্দকার মোশাররফ হোসেনসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ।

সোমবার হঠাৎ করেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে তাদের দল সংলাপে বসবে। ধানমন্ডিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সংলাপের জন্য কোনো পূর্বশর্তও নেই। বঙ্গবন্ধু কন্যার দরজার কারও জন্য বন্ধ থাকে না। তাই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে সংলাপে বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে গণভবনে সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে রোববার নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে জাতীয় নির্বাচনসহ ঘোষিত ৭ দফা দাবি ও ১১টি লক্ষ্য সম্বলিত একটি চিঠিআওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে গিয়ে পৌঁছে দেন ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনার কাছে দেয়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে সংলাপের আহ্বান জানানো হয়।

গত ১৩ অক্টোবর ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপিসহ চারটি দলের সমন্বয়ে নতুন রাজনৈতিক জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আত্মপ্রকাশ করে।