‘শো মাস্ট গো অন!’

টিবিটি টিবিটি

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:০১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০১৮ | আপডেট: ১২:০১:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০১৮
ছবিঃ সংগৃহিত

‘এই অনুষ্ঠান উৎসর্গ করছি বাংলাদেশের কিংবদন্তি গায়ক আইয়ুব বাচ্চুকে।’ কথাটা বলে গিটারের কান্না শোনালেন দেশের আরেক জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী জেমস।

গতকাল যখন আইয়ুব বাচ্চু মারা যান, তখন জেমস ছিলেন বরগুনায়। রাষ্ট্রীয় উন্নয়ন মেলার কনসার্ট করতে সেখানে যান তিনি। প্রিয়জনের মৃত্যুতে মঞ্চে নিজের কান্না আর গিটারের সুর যেন মিলেমিশে যায় এদিন।

প্রথমে অনুষ্ঠানটি করতেই চাননি এই শিল্পী। আবেগতাড়িত কণ্ঠে মঞ্চে জেমস বলেন, ‘আজকে অনুষ্ঠানটা করার একবারে ইচ্ছে ছিল না। বহু বছর আগের একটা গল্প বলি। যখন আমি আর বাচ্চু ভাই আড্ডা দিতাম। তখন আমরা হাসতে হাসতে একদিন বললাম, আমাদের শিল্পীদের নিয়ে প্রবাদ আছে, ইংরেজিতে : শো মাস্ট গো অন! তাই চেষ্টা করব।’

আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুতে সেই শোটি তিনি উৎসর্গ করেন বাচ্চুকে। তিনি বলেন, ‘বাচ্চু ভাই নেই, এটা বিশ্বাস করতে পারছি না। তাঁর সঙ্গে প্রচুর শো করেছি। সুখ-দুঃখ ভাগাভাগি করেছি। প্রায় ৪০ বছর আমরা একে অপরের সঙ্গে ছিলাম।’

জেমসের সঙ্গে আইয়ুব বাচ্চুর কয়েকটি যৌথ অ্যালবাম বেরিয়েছিল নব্বইয়ের দশক ও এই শতকের শুরুতে। ‘ক্যাপসুল’, ‘পিয়ানো’, ‘যন্ত্রণা’ প্রভৃতি অ্যালবাম সে সময় বেশ জনপ্রিয়তা পায়।

আইয়ুব বাচ্চু গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে মারা যান। দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছিলেন তিনি।

হৃদরোগের কারণে আইয়ুব বাচ্চু গত কয়েক বছর বারবারই হাসপাতালে এসেছেন চিকিৎসার জন্য। ২০০৯ সালে তাঁর হার্টে রিং পরানো হয়। দুই সপ্তাহ আগে শেষ তিনি স্কয়ার হাসপাতালে এসেছিলেন।

শিল্পীর ছেলে ও মেয়ে দেশের বাইরে থেকে ঢাকায় ফিরে এলে আগামীকাল চট্টগ্রামে মায়ের পাশে দাফন করা হবে আইয়ুব বাচ্চুকে।

বর্তমানে আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনা হয়েছে। সেখানে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে জড়ো হয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাচ্চুর মরদেহ আনার পরপরই সেখানে উপস্থিত হন পরিবারের সদস্য, বন্ধু ও দেশের বিভিন্ন অঙ্গনের তারকারা। গত রাতে মরহুমের লাশ রাখা ছিল স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে। শ্রদ্ধা জানানোর পর শিল্পীর মরদেহ জাতীয় ঈদগাহ মাঠে বাদ জুমা জানাজার জন্য আনা হবে।

জনপ্রিয় ব্যান্ড এলআরবির দলনেতা আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একাধারে গায়ক, গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক। ১৯৭৮ সালে তাঁর যাত্রা শুরু হয় ফিলিংস ব্যান্ডের মাধ্যমে। এরপর ১০ বছর সোলস ব্যান্ডে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন তিনি। আশির দশকে একাধিক একক অ্যালবাম বেরোলেও নব্বইয়ের দশকে ‘ডাবল অ্যালবাম’ দিয়ে এলআরবির যাত্রা শুরু হয়। তখন ব্যান্ডটির নাম ছিল ‘লিটল রিভার ব্যান্ড’। পরে ব্যান্ডের নাম পাল্টে রাখা হয় ‘লাভ রানস ব্লাইন্ড’।

১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আইয়ুব বাচ্চু। ‘চলো বদলে যাই’, ‘ফেরারি মন’, ‘এখন অনেক রাত’, ‘হকার’, ‘আমি বারো মাস তোমায় ভালোবাসি’, ‘বাংলাদেশ’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা তিনি। সংগীতজগতে তিনি এবি নামে পরিচিত হলেও তাঁর ডাকনাম ছিল রবিন। এ নামেও তিনি নব্বইয়ের দশকে একক অ্যালবাম বের করেন।