সতর্ক থাকবেন, উত্তেজিত হবেন না : কাদের

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:১১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০১৮ | আপডেট: ১০:১১:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৯, ২০১৮
সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

একুশে অগাস্টের মামলার রায়ের আগের দিন সারা দেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সতর্ক অবস্থানে থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।  মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর শ্যামপুরে দলের নির্বাচনী প্রচারপত্র বিলিতে গিয়ে এ নির্দেশনা দেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামীকাল সবাই সতর্ক থাকবেন, কোন অবস্থাতেই উত্তেজিত হওয়া যাবে না। আমরা দেখি তারা কি করে। কিছু করতে গেলে, সময় মত সবই করতে হবে। নেতাকর্মীদের বলবো, মাথা গরম করবেন না, কোন ধরনের উস্কানিতে পা দিবেন না। ঠান্ড মাথায় কাজ করবেন। আক্রমন করবেন না, আক্রান্ত হলে দাত ভাঙ্গা জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকুন। আক্রান্ত হলে দাত ভাঙ্গা জবাব দিতে হবে।

রায়ে আওয়ামী লীগ ন্যায় বিচার দাবি করছে জানিয়ে কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমরা ন্যায় বিচার দাবি করছি। আমরা অতিরিক্ত কিছু চাই না, যে অপরাধী তাকে অপরাধী হিসেবে চিহ্নিত করুন, সে যেই হোক, যত প্রভাবশালীই হোক। এত রক্ত এত প্রাণহানি এর বিচার বাংলাদেশে হবে, এর ন্যায় বিচার আমরা চাই।

২১ অগাস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় বিএনপির কেউ জড়িত ছিলেন না দাবি করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগই ওই ঘটনার ‘সুবিধাভোগী’। এর জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, এই মিথ্যাচারের জন্য যদি নোবেল পুরস্কার দেওয়া হতো, তাহলে এই কথার জন্য ফখরুল সাহেবকে মিথ্যাচারের নোবেল দেওয়া উচিত। এই কথার জন্য। এই রকম ডাহা মিথ্যাচার বিএনপির মহাসচিব বলতে পারে? মনে আছে ঘটনা ঘটলো, আমাদের ২৪জন নেতাকর্মী মারাগেল, পাঁচশত নেতাকর্মী আজকে স্প্লিন্টার বহন করছে।

তিনি বলেন, ফখরুল সাহেব, সংসদ চলছিল সংসদে বিরোধী দলের নেতা কথা বলতে দাঁড়িয়েছিল, কিন্তু মাইক্রোফোন সেদিন খুলল না। বেগম জিয়া কি বলেছিলেন সেদিন মনে আছে? বলেছিলেন ওনাকে আবার কে মারতে আসছে ওনি তো বেনেটি ব্যাগে গ্রেনেড নিয়ে আসছিলেন। আমাদের নেত্রী উত্তর দিয়েছিলেন আমি কি তাহলে আত্মহত্যা করতে গিয়েছিলাম। কি নিষ্ঠুর কি নির্মম এই দল। ফখরুল সহেব আপনিতো মিথ্যাচারে, বেগম জিয়ার চেয়ে এগিয়ে আছেন।

আন্দোলনে নামলে জনগন গণপিটুনি দিবে জানিয়ে কাদের বলেন, এই সময় আন্দোলনের ডাক দিয়ে জনগনের কাছে গেলে গণপিটুনি খায় কিনা আমার সন্দেহ হচ্ছে। মানুষ এখন নির্বাচনের মুডে। ১৪ সাল আর আসবে না। ককটেল, নাশকতা, আগুন সন্ত্রাস যদি তারা করতে যায় জনগন প্রতিরোধ গড়বে।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক আন্দোলন আমরা রাজনৈতিক ভাবে মোকাবিলা করবো। যদি সহিংসতা করে তাহলে কি করতে হবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা অলরেডি কঠোর অবস্থানে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী রীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, দক্ষিনের সভাপতি আবুল হাসনাত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ।