সমাবেশ জুড়ে খালেদা-তারেকের ‘পোষ্টার’!

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১:০৮ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০১৮ | আপডেট: ১:০৮:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০১৮
সংগৃহীত

উদ্যানজুড়ে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও লন্ডনে অবস্থান করা দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবি ও প্রতিকৃতি শোভা পাচ্ছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রথম জনসভার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। এতে দলটির দুই নেতার মুক্তি দাবি জানানো হয়েছে। অবশ্য বিএনপির নেতাকর্মীরা বলছেন, জোটের প্রধান শরিক দল হিসেবে বিএনপির শীর্ষ দুই নেতার উপস্থিতি বা ছবি থাকা স্বাভাবিক।

জনসভাস্থল জুড়ে কারাবন্দি খালেদা জিয়া ও লন্ডনে অবস্থান করা তারেক রহমানের ছবি শোভা পাচ্ছে। ব্যানার, পেস্টুন, প্রতিকৃতি, পোস্টার, ব্যাজ ও পট্টিতে- সর্বত্রই দলটির এই দুই নেতার উপস্থিতি।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ভোর থেকে মঞ্চ নির্মাণসহ সার্বিক প্রস্তুতির কাজ শুরু হয়। ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট সংলগ্ন উদ্যানের দক্ষিণ দিকে মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। সামনের দিকে নিরাপত্তা এলাকা রেখে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

যদিও এ জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা, গণফোরাম সভাপতি ও সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন। আর প্রধান আলোচক হচ্ছেন যুক্তফ্রন্টের মুখপাত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ মঙ্গলবার বেলা ২টায় জনসভা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সকাল থেকে আসতে শুরু করেন নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে উপস্থিতির সংখ্যাও বাড়ছে। এদের মধ্যে একটি বড় অংশ আসছেন ঢাকার সংসদীয় আসন ভিত্তিক মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নির্বাচনী শোডাউন। তাদের সঙ্গে আনা ব্যানার ও প্লাকার্ড ও স্লোগানেও খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের ছবিযুক্ত মুক্তির দাবি জানানো হয়েছে।

জোট নেতারা মনে করেন, নতুন কর্মসূচি নির্ধারণ করা, তা সফল করা এবং লোক জড়ো করা- এ সবই নির্ভর করছে জোটের প্রধান শরিক বিএনপির ওপর। ফলে জোটের মধ্যে দলটির আধিপত্য থাকাটাই স্বভাবিক। এটা দোষের কিছু নয়।

জোটের পক্ষ থেকে ‘স্মরণকালের’ জনসভা থেকে নতুন কর্মসূচি ঘোষণার কথা বলা হয়েছে। ফলে সর্বমহলে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, চলমান সংলাপের মধ্যে আন্দোলনের নতুন কী বার্তা দেবে এই জোট?