সাটিয়াজুরি ও শাকির মোহাম্মদ স্কুলে ৪’শ ছাত্রীর মাঝে ‘স্যানিটারি টাওয়েল’ বিতরণ

প্রকাশিত: ৮:৩৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯ | আপডেট: ৮:৩৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯
ছবি: টিবিটি

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়িত ‘কিশোরী স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতা সৃষ্টিতে স্যানিটারি টাওয়েল প্রস্তুতকরণ ও বিতরণ কর্মসূচির’ আওতাধীন জেলার চুনারুঘাট উপজেলার সাটিয়াজুরি উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০০ জন ও শাকির মোহাম্মদ উচ্চ বিদ্যালয়ের বয়োঃসন্ধিকালীন নির্বাচিত ২০০ জন ছাত্রীর মধ্যে পৃথকভাবে স্যানিটারি টাওয়েল বিতরণ করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে ১৮ সেপ্টেম্বর বুধবার বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে চুনারুঘাট উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফাহমিদা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও স্যানিটারি টাওয়েল বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর হবিগঞ্জের উপ-পরিচালক মোঃ মাহবুবুল আলম।

এ সময় দুইটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, গভর্নিং বডির নেতৃবৃন্দ, এলাকার সুধীজন ও স্কুলের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সকলেই এই কর্মসূচির ভূয়সী প্রসংশা করেন এবং এ ধরণের কর্মসূচি গ্রহণ করায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরকে সাধুবাদ জানান।

উপ-পরিচালক মো. মাহবুবুল আলম বলেন, বেকার নারীদের কাজে লাগিয়ে স্বাবলম্বী করাই আমাদের কাজ। প্রশিক্ষণ পেয়ে আজ বেকার নারীরা বাড়ি বাড়ি কর্মসস্থান গড়ে তুলছে। যার ফলে মনে তৃপ্তি পাচ্ছি।

তিনি জানান, আট নারীর হাতে তৈরি হওয়া স্বাস্থ্যসম্মত স্যানেটারি টাওয়েল হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় পইল উচ্চ বিদ্যালয়, আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চুনারুঘাট উপজেলার সাটিয়াজুরি উচ্চ বিদ্যালয় ও শাকির মোহাম্মদ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮০০ জন বয়ো:সন্ধিকাল কিশোরীর মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, স্কুলে নারী শিক্ষার্থীর জন্য আলাদা টয়লেট থাকলেও সেখানে মাসিক ব্যবস্থাপনা বলতে কিছু নেই। তাই ৪০ শতাংশ ছাত্রীকে মাসে গড়ে ৩ দিন স্কুলে অনুপস্থিত থাকতে হয়। উপস্থিতি না থাকায় লেখাপড়ায় পিছিয়ে পড়তে হচ্ছে এদের।

অনেক সময় আর্থিক অবস্থার কারণে স্যানেটারি টাওয়েল বা প্যাডের পরিবর্তে ময়লা কাপড় ব্যবহারের ফলে নারী শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এদেরকে বিনামূল্যে সরবরাহেই সরকারের এই টাওয়েল বিতরণ কর্মসূচি।